আজব দুনিয়া

ষোড়শী ছাত্রীকে হুঁকো ও মদ সেবন করিয়ে ধর্ষণ! গ্রেপ্তার-৫ জন

ষোড়শী ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে ৫ জনকে গ্রেপ্তার করল হায়দরাবাদ পুলিশ। ধৃতদের মধ্যে ৪ জনই ইঞ্জিনিয়ারিং শিক্ষার্থী, বাকি একজন হুঁকো পার্লারের মালিক।গতকাল বৃহস্পতিবার এই ৫ জনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে।

ঘটনাসূত্রে জানা গেছে, ধর্ষিতা ষোড়শী তরুনী ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং-এর ছাত্রী। ধর্ষিতার অভিযোগ সূত্রে জানা যায় যে , গত ২ নভেম্বর২০১৬ রোজ বুধবার ঘটকেশ্বরে অভিযুক্তরা তাকে জোর করে হুঁকো সেবন করায় এবং পরে তাকে জোর করে মদও খাওয়ানো হয়েছিল। এতে সে নেশাচ্ছন্ন হয়ে পড়লে, একজন তাকে ধর্ষণ করে।
রচাকোন্ডা থানার পুলিশ জানিয়েছে, ধর্ষিতা ছাড়াও তিন অভিযুক্ত হরিশ, সমীর ও হেমন্ত ঘটকেশ্বরের একই কলেজের শিক্ষার্থী। অজয় নামে আর এক অভিযুক্ত অন্য ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের ছাত্র। ধৃত হুঁকো পার্লারের মালিকের নাম আব্বাস।

অ্যাসিস্ট্যান্ট কমিশনার অফ পুলিশ জি সন্দীপ জানান, ঘটনার দিন ওই চার ইঞ্জিনিয়ারিং ছাত্রের সঙ্গে আব্বাসের হুঁকো পার্লারে গিয়েছিল ষোড়শী ছাত্রী। সেখানে পীড়াপীড়িতে ওই ছাত্রী হুঁকো টানতে বাধ্য হয়। এরপর আবার তাকে মদও খাওয়ানো হয়। তারপর হরিশ নামে এক ছাত্র একটি ঘরে নিয়ে গিয়ে তাকে ধর্ষণ করে। বাকিরা ওই ছাত্রকে বাধা না-দিয়ে, ঘরের বাইরে দাঁড়িয়ে ধর্ষণের তামশা দেখে ও মজা লুটে।

ঘটনার তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে, সিসিটিভিতে যাতে কিছু না-ওঠে তার জন্য আব্বাস সিসিটিভি বন্ধ করে দিয়েছিল। পার্লারের রেকর্ডিংয়ের একটা অংশ মুছেও দেয়া হয়। ঘটনার তথ্যপ্রমাণ লোপাট করে ধর্ষককে মদত দেয়ার অভিযোগে গ্রেপ্তার হয়েছে পার্লার মালিক।


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন