লাইফষ্টাইলস্বাস্থ্য

শিশুর বামনত্বের কারণ ও প্রতিকার

জীনগত বা পরিবেশগত, মূল কারণ যাই হোক না কেন, শিশুর উচ্চতা বিষয়ক সমস্যাটি দিন দিন বেড়েই চলছে। অপুষ্টিজনিত কারণেও সম বয়সীদের থেকে শিশু কিশোররা উচ্চতায় কম হতে পারে। দুই বছর বয়স পর্যন্ত শিশু বিশ থেকে ত্রিশ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি হয়, তারপর বছরে দশ থেকে বারো সেন্টিমিটার। আর বয়ঃসন্ধিতে হঠাৎ করে তা বেড়ে যায়। ১৯ থেকে ২১ বছর পর্যন্ত সময়ের পর উচ্চতা বৃদ্ধি থেমে যায়।

হরমোনের ওঠানামা, দীর্ঘমেয়াদী কিডনি, ফুসফুসের সমস্যা, থাইরয়েড, গ্রোথ হরমোন, ডাউন সিনড্রোম এগুলোর অভাবে উচ্চতা কমে যেতে পারে। উচ্চতা কমে গেলে শিশুরা পারিবারিক ও সামাজিক সমস্যার শিকার হতে পারে। টিজিং, বুলিং ছাড়াও মানসিকভাবে পিছিয়ে পড়ে এই শিশুরা।

কৃত্রিম হরমোনের সাহায্যে চিকিৎসা ব্যয়বহুল হলেও বর্তমানে তার খরচ অনেকটাই কমে এসেছে। গ্রোথ হরমোন অপর্যাপ্ত, ডাওন সিনড্রোম, কম ওজনের শিশু, কিডনি জটিলতার শিশুদের জন্য এই চিকিৎসা খুবই জরুরি।

তবে বামনত্ব সমস্যা সমাধানে যত দ্রুত সম্ভব চিকিৎসা নিতে হবে। কিশোর কিশোরীদের ক্ষেত্রে ফিউশনের আগেই চিকিৎসা নিলে ভাল ফলাফল আশা করা যায়, অন্যথায় চিকিৎসা কার্যকর না হবার শঙ্কা বেশি। তাই সমস্যা বুঝতে পারার সাথে সাথেই সমাধানের জন্য কাজ করতে হবে।


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন