রাজনীতি

‘আগামী নির্বাচনে শেখ হাসিনা পেনাল্টি মিস করবেন না’

আগামী নির্বাচনে শেখ হাসিনা পেনাল্টি মিস করবেন না বলে মন্তব্য করেছেন ১৪ দলের মুখপাত্র, আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। তিনি বলেন, ‘বিশ্বকাপ ফুটবলে মেসি পেনাল্টি মিস করতে পারেন, রোনালদো পেনাল্টি মিস করতে পারেন। কিন্তু ইনশাআল্লাহ আগামী নির্বাচনে শেখ হাসিনা পেনাল্টি মিস করবেন না। অবশ্যই আমরা বিজয় অর্জন করবো।’

শুক্রবার দুপুরে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে ১৪ দলের এক বৈঠক শেষে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

সভায় গাজীপুর সিটি করপোরেশনে ১৪ দলের প্রার্থী বিজয়ীয় হওয়া গাজীপুরবাসীকে ধন্যবাদ জানানো হয়। আগামী জাতীয় নির্বাচনও আওয়ামী লীগ জোটগতভাবে করবে—প্রধানমন্ত্রীর এমন ঘোষণা ১৪ দলের বৈঠকে স্বাগত জানানো হয়।

মোহাম্মদ নাসিম বলেন, গাজীপুর নির্বাচনে কোনো অনিয়ম হলে তা খতিয়ে দেখবে নির্বাচন কমিশন। তবে কোনো নির্বাচনেই সবাই সন্তুষ্ট হয় না।

গত ১৫ মে খুলনায় এবং ২৬ জুন গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বড় ব্যবধানে হারের পর বিএনপি অভিযোগ করেছে তাদেরকে কারচুপি করে হারানো হয়েছে। নির্বাচন কমিশন বলছে, অল্প কিছু কেন্দ্রে কারচুরি হয়েছে, সেই কেন্দ্রগুলোতে ভোট স্থগিত হয়েছে। আওয়ামী লীগ বলেছে, জনগণ তাদের পছন্দ অনুযায়ী প্রার্থী নির্বাচন করেছে। এর মধ্যে গাজীপুরে ভোট শেষে ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত মার্শা স্টিফেনস ব্লুম বার্নিকাট বলেছেন, সেখানে ভালো চিত্রও ছিল, খারাপ চিত্রও ছিল। আর সব মিলিয়ে এই চিত্রের জন্য উদ্বিগ্ন তারা। আওয়ামী লীগ নেতা মাহবুব উল আলম হানিফ আবার বার্নিকাটকে গত নভেম্বরে তার দেশের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ নিয়ে ভাবার কথা বলে জবাব দিয়েছেন।

বৈঠক শেষে নাসিম বলেন, ‘নির্বাচনেই তো জয়-পরাজয় অবশ্যম্ভাবী। জয়-পরাজয় নিয়ে আলোচনা হবেই। শুধু বাংলাদেশেই নয়, দুনিয়ার সকল নির্বাচনে সবার মনজয় হয়েছে তা বলা যাবে না। আমেরিকা, বৃটেন, ভারত এবং মালেয়শিয়ার নির্বাচন নিয়েও অনেকেই অনেক কথা বলেছেন। নির্বাচনে শতভাগ মানুষ সন্তুষ্ট হবে এমনটা আমরা বিশ্বাস করি না।’

জোটের মুখপাত্র বলেন, ‘নির্বাচন হচ্ছে যুদ্ধের মতো, এখন মাঠে যে শক্তভাবে থাকবে তাঁরাই বিজয়ী হবে। মাঠে অনুপস্থিত থেকে নির্বাচন নিয়ে কোন কথা বললে তা গ্রহণযোগ্য হবে না।’

গাজীপুরের ভোট নিয়ে বার্নিকাটের বক্তব্যের বিষয়ে জানতে চাইলে নাসিম বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্টদূতের বক্তব্য তার ব্যক্তিগত। গাজীপুর ও খুলনার জনগণ জানে ভোট কীভাবে হয়েছে। তারা সচেতনভাবে ভোট দিয়েছে। এটা নিয়ে কোন মন্তব্য করতে চাই না। যে কোনো নির্বাচন নিয়ে যেকোন ব্যক্তি কিংবা সংগঠন তাদের পর্যবেক্ষণ দিতে পারে। পর্যবেক্ষণ দেয়ার ক্ষমতা সবারই আছে। সেটা সঠিক কি বেঠিক তা জনগণই নির্ধারণ করবে।’

নাসিম বলেন, নির্বাচন নিয়ে কোন অভিযোগ থাকলে তার তদন্ত করবে নির্বাচন কমিশন।ইদানীং সব নির্বাচনে অংশ নেয়ার ঘোষণা দেয়ায় বিএনপিকে অভিনন্দনও জানান আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য। জানান, বিগত সব সিটি নির্বাচনে ১৪ দল ঐক্যবদ্ধভাবে অংশ নিয়েছিল, আগামী তিন সিটি নির্বাচনেও (রাজশাহী, বরিশাল ও সিলেট) তারা ঐক্যবদ্ধভাবে নৌকার পক্ষে লড়বেন।

বিএনপির জাতীয় ঐক্যের চেষ্টা নিয়ে ভাবনা: বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জানিয়েছেন, তারা ‘গণতন্ত্রকামী’ সব শক্তিকে এক করে জাতীয় ঐক্যের চেষ্টা করছেন। এই ঐক্য হয়ে গেলে তিন দিনে সরকারের পতন ঘটানো হবে।

নাসিম বলেন, ‘তথাকথিত ঐক্যের নামে কিছু মুখচেনা ব্যক্তি আবারও ষড়যন্ত্র করতে মাঠে নেমেছে। যারা আন্দোলনে পরাজিত হয়, নির্বাচনে পরাজিত হয়, যারা সবসময় মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তিকে ভয় পায়। জাতীয় ঐক্যের নামে কিছু ব্যক্তি সমবেত হওয়ার চেষ্টা করছে। এদের পেছনে কারা আছেন তা সকলেই জানেন। এরা সবসময় ঘোলাপানিতে মাছ শিকার করে একটা অসাংবিধানিক শক্তিকে ক্ষমতায় আনতে চায়।’

নাসিম বলেন, ‘আগামী নির্বাচনের আগে কোনো অশুভ শক্তি, মুখচেনা, বর্ণচোরা ব্যক্তি যদি বিএনপি-জামায়াতকে সমর্থন দেয়ার নামে অরাজকতা সৃষ্টি করতে চায় তাহলে ১৪ দলীয় জোট অতীতের মতো মোকাবেলা করবে। আমাদের শক্তি হলো জনগণ। কোন মুখচেনা ব্যক্তি নয়। প্রয়োজনে আমরা আরও মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তিকে এখানে সমবেত করব এবং এসকল অশুভ শক্তিকে মোকাবেলা করব।’গাজীপুরবাসীর প্রত্যাশা পূরণ করবেন জাহাঙ্গীর: গাজীপুরবাসী উন্নয়নের প্রত্যাশা করে আওয়ামী লীগের প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলমকে ভোট দিয়েছেন বলে মনে করেন নাসিম। আর নবনির্বাচিত মেয়র মহানগরবাসীকে নিরাশ করবে না বলেই তার বিশ্বাস।

নাসিম বলেন, ‘আমরা বিশ্বাস করি গাজীপুরের উন্নয়নের যে আশা গাজীপুরবাসী চেয়েছেন, আমাদের সরকারের সরাসরি তত্ত্বাবধানে গাজীপুরের মেয়র ও কাউন্সিলরা আগামী পাঁচ বছর সেই প্রত্যাশা পূরণ করতে পারবে।’পরাজিত প্রার্থীদেরকেও গাজীপুরের উন্নয়নে নবনির্বাচিত মেয়রকে সহযোগিতা করার আহ্বান জানান নাসিম।

বৈঠকে আওয়ামী লীগ নেতাদের মধ্যে সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, দপ্তর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক আফজাল হোসেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক আব্দুস সবুর, উপ-দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

জোট নেতাদের মধ্যে ছিলেন জাসদের একাংশের সভাপতি শরিফ নুরুল আম্বিয়া, সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক প্রধান, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দীলিপ বড়ুয়া, গণতন্ত্রী পার্টির সাধারণ সম্পাদক শাহাদাৎ হোসেন, কমিউনিস্ট কেন্দ্রের আহ্বায়ক ওয়াজেদুল ইসলাম খান, তরীকত ফেড়ারেশনের চেয়ারম্যান নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারী প্রমুখ।


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন