খেলাপ্রধান সংবাদ

ফ্রান্সের শক্তি তারুণ্য উরুগুয়ের অভিজ্ঞতা

গ্রিজম্যান-এমবাপ্পেরা নিঝনি নভগোরদে পৌঁছেছেন গতকাল দুপুরের দিকে। কিন্তু গতপরশু রাত থেকে মস্কো থেকে চারশ’ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত ছোট এ শহরের রাস্তায় নেচে-গেয়ে উল্লাস শুরু করে দিয়েছেন ফরাসি সমর্থকরা। তাদের দৃঢ়বিশ্বাস, সহজেই কোয়ার্টার ফাইনাল জিতবেন তারা। আসলেই কি উরুগুয়েকে এত সহজে হারানো সম্ভব! ফ্রান্সের কোচ দিদিয়ের দেশম কিন্তু কঠিন চ্যালেঞ্জ দেখছেন। উরুগুয়ের জমাট রক্ষণভাগের ফাঁক গলে গোল বের করা ভীষণ কঠিন হবে বলেই শঙ্কা দেশমের। উরুগুয়ের আক্রমণভাগেও আছেন লুইস সুয়ারেজ ও এডিনসন কাভানি নামের ভয়ঙ্কর দুই স্ট্রাইকার। তাই তো জমজমাট এক ম্যাচের আভাস পাওয়া যাচ্ছে। ফ্রান্স যেমন জয়ের মনোভাব নিয়ে নামবে, তেমনি ঝড় তুলতে চাইছে উরুগুয়েও।

দু’দলের লড়াইয়ের ট্যাগ লাইন দেওয়া হচ্ছে, গতির বিপক্ষে অভিজ্ঞতার লড়াই। ফরাসিদের মূল শক্তি হলো তারুণ্য। ১৯ বছরের তরুণ কিলিয়ান এমবাপ্পের সঙ্গে আন্তোনিও গ্রিজম্যান ও পল পগবারা গতি দিয়ে যে কোনো দলকে মুহূর্তের মধ্যে গুঁড়িয়ে দেওয়ার ক্ষমতা রাখেন। দুরন্ত গতিসম্পন্ন স্ট্রাইকার এমবাপ্পে যে কতটা ভয়ানক হয়ে উঠতে পারেন সেটা টের পেয়েছে আর্জেন্টিনা। শেষ ষোলোর ম্যাচে তিনি একা কেবল গতি দিয়ে আর্জেন্টিনার ডিফেন্সকে এলোমেলো করে দেন। নিজে দুটি গোল করেন, একটি পেনাল্টি আদায় করেন। তবে উরুগুয়ের রক্ষণভাগে আছে দিয়েগো গডিনের মতো এক পোড় খাওয়া সৈনিক। তার সঙ্গে আছেন তরুণ হোসে গিমিনেজ। গডিন-গিমিনেজ জুটি বোঝাপড়াটা দারুণ। লা লীগায় দুই উরুগুইয়ান অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদের হয়ে খেলেন বলে তাদের জুটির রসায়ন অসাধারণ। দ্বিতীয় রাউন্ডে পর্তুগালের বিপক্ষে একটি গোল হজম ছাড়া তারা আর পরাস্ত হননি। দুই ফুলব্যাক মার্টিন ক্যাসারেস ও দিয়াগো লাক্সাল্টও দুর্দান্ত খেলছেন। তবে রক্ষণভাগের ওপর চাপটা বেশি পড়ছে না ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার লুকাস টোরেইরার কারণে। দুর্দান্ত খেলছেন তিনি।

তবে এমন একটি মহাগুরুত্বপূর্ণ ম্যাচের আগে উরুগুয়ের দুশ্চিন্তা চোট নিয়ে। দুর্দান্ত ফর্মে থাকা আক্রমণভাগের অন্যতম প্রধান অস্ত্র কাভানি চোটে পড়েছেন। পর্তুগালের বিপক্ষে শেষ ষোলোর ম্যাচে তার জোড়া গোলেই জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে উরুগুয়ে। কিন্তু সে ম্যাচেই অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে তার পায়ের মাংসপেশিতে টান পড়ে। ফ্রান্সের বিপক্ষে কোয়ার্টার ফাইনালে তিনি খেলতে পারবেন কি-না, সেটা নিয়ে ধোঁয়াশা আছে। দুই গোল দেওয়া পর ৭৪ মিনিটে প্রতিপক্ষ অধিনায়ক ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর কাঁধে ভর দিয়ে সেদিন মাঠ ছেড়েছিলেন কাভানি। তখন মনে হয়েছিল, তার চোট ততোটা গুরুতর নয়। কিন্তু এখন দেখা যাচ্ছে, বাজে ধরনের চোটেই পড়েছেন তিনি। টানা তিন দিন অনুশীলনে অংশ নিতে পারেননি। চিকিৎসা চলছে তার বাঁ পায়ের। তিন দিন অনুশীলন করতে না পারায় তার ফ্রান্সের বিপক্ষে তার খেলা নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে। হালকা চোট আছে সুয়ারেজেও। সাবধানতা থেকেই তিনিও একদিন অনুশীলন করেননি। তাই দু’বারের বিশ্বকাপজয়ীদের আক্রমণভাগ নিয়ে একটা শঙ্কা থাকছেই। কাভানি খেলতে না পারলে হয়তো তার জায়গায় ক্রিশ্চিয়ান স্টুয়ানি খেলতে পারেন। এমনকি ফরম্যাশনেও পরিবর্তন আনতে পারেন উরুগুয়ের কোচ অস্কার তাবারেজ।

ফরাসি শিবিরে চোটে নেই কেউ। তবে দুই হলুদ কার্ডের জন্য আজ খেলতে পারবেন না মিডফিল্ডার ব্লেস মাতুইদি। আর্জেন্টিনার বিপক্ষে ৪-৩ গোলে জেতা ম্যাচে মেসিকে আটকে রাখার পেছনে তার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল। আক্রমণেও নিয়মিত সহায়তা করেন তিনি। তার বদলে আজ তরুণ মিডফিল্ডার তুলিসো নামতে পারেন। ১৯৯৮ চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্সের আরও একটা চিন্তা হচ্ছে রক্ষণভাগ নিয়ে। তাদের দুই সেন্টার ব্যাক স্যামুয়েল উমতিতি ও রাফায়েল ভারানের মধ্যে বোঝাপড়ার খানিকটা ঘাটতি দেখা যায়। এ সুযোগেই আর্জেন্টিনা তিন গোল করে বসেছিল। উমতিতি বার্সা ও ভারানে রিয়ালে খেললেও দু’জনই তরুণ। আজও বোঝাপড়ায় ঘাটতি দেখা গেলে সুয়ারেজকে আটকানো কঠিন হয়ে যাবে। আর কাভানি যদি খেলেন তাহলে তো বড় চ্যালেঞ্জ অপেক্ষা করছে ফরাসি ডিফেন্সের জন্য।

দুই দলের মুখোমুখি লড়াইয়ে এগিয়ে উরুগুয়ে। আটবারের মোকাবেলায় তিন জয় লাতিন আমেরিকার দেশটি, একবার জিতেছে ফ্রান্স। চারটি ম্যাচ ড্র হয়েছে। সর্বশেষ তারা মুখোমুখি হয়েছিল ২০১০ দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্বকাপে। সেখানে গ্রুপ পর্বের ম্যাচটি গোলশূন্য ড্র হয়েছিল। তবে ফ্রান্সের জন্য সুখস্মৃতি হলো, বিশ্বকাপে লাতিন আমেরিকার দেশগুলোর বিপক্ষে গত নয় ম্যাচ হারেনি তারা। তবে অতীত থেকে উরুগুয়েও অনুপ্রেরণা নিতে পারে। ছয়বার বিশ্বকাপ কোয়ার্টার ফাইনাল খেলে মাত্র একবার সেমিতে উঠতে ব্যর্থ হয়েছিল তারা। এবার কে যাবে সেমিতে!

 

 

দেশরির্পোট/এ এইচ


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন