সারাবিশ্ব

মোদিকে নিয়ে ফের ক্ষুব্ধ আরএসএস

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে এবার কাঠগড়ায় দাঁড় করালেন আরএসএসের শীর্ষ নেতৃত্ব। সম্প্র্রতি প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে আয়োজিত এক নৈশভোজের বৈঠকে আরএসএস নেতারা মোদিকে বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী একাই সরকার চালাচ্ছেন। মন্ত্রী বা দলের নানা স্তরে যথেষ্ট আলোচনা করা হচ্ছে না, এমন একটা ধারণা মানুষের মনে তৈরি হয়েছে। ২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনের আগে এটা মোটেই ভালো লক্ষণ নয়। আরএসএস নেতারা মনে করছেন, এখনও বছরখানেক সময় আছে। প্রধানমন্ত্রী আরও বেশি করে সবার সঙ্গে আলাপ-আলোচনা শুরু করুন। খবর আনন্দবাজারের। সংঘনেতাদের দ্বিতীয় গুরুতর অভিযোগটি হলো, গত চার বছরে নানা প্রকল্প শুরুর হৈচৈ শোনা গেলেও সেগুলোর যথাযথ বাস্তবায়ন দেখা যাচ্ছে না।

প্রধানমন্ত্রী মোদি সংঘপ্রধান মোহন ভগবতের কাছে এই নৈশভোজের প্রস্তাব দেন। অমিত শাহ নিজে নাগপুরে গিয়ে সংঘচালকের সঙ্গে দেখা করেন। ভগবত নিজে না এলেও সংগঠনের শীর্ষ প্রতিনিধিদের পাঠান তিনি।

গত চার বছরে পরিস্থিতি যে প্রতিকূল হয়ে উঠেছে, সেটাও মোদি বুঝতে পেরেছেন। অখিলেশ-রাহুল গান্ধী-মায়াবতী একজোট হওয়ায় উত্তর প্রদেশে উদ্বেগ বেড়েছে। অন্য রাজ্যেও অসন্তোষ বাড়ছে, বিরোধীরা জোট বাঁধছে। তাই ২০১৯-এর আগে রাজ্যে রাজ্যে সংঘ পরিবারের সংগঠনের সহায়তা চান মোদি। আরএসএস নেতারা বলেন, তারা চান ২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনে মোদিই ফের জিতুন। কিন্তু গত চার বছরে বিজেপি সরকারের কাজকর্ম সম্পর্কে তারা সুকৌশলে সমালোচনাও করেন।

মোদির অনেক প্রশংসা এবং সরকারের কিছু ভালো কাজের উল্লেখ করেও ঘুরিয়ে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছেন মোদিকে। আরএসএস নেতাদের মোদি বলেছেন, এই নেতিবাচক ধারণা বদলাতে তিনি সচেষ্ট হবেন। তবে তিনি মনে করেন, এটা মিডিয়ার বানানো ধারণা।

অটল বিহারি বাজপেয়ী যখন প্রধানমন্ত্রী ছিলেন, তখনও নানা কারণে সংঘের সঙ্গে সরকারের বিরোধ বাধে। আদভানি সে সময়ে বাজপেয়ির বাড়িতে ঠিক এই রকম একটি বৈঠক ডেকেছিলেন। সে বৈঠকেও আরএসএস নেতারা তাদের ক্ষোভের কথা বিশদ ব্যাখ্যা করেন। এবারেও আরএসএস নেতাদের অভিযোগ, নীতি প্রণয়নে সরকার তাদের যথেষ্ট গুরুত্ব দিচ্ছেন না।

 

দেশরির্পোট/এ এইচ

 


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন