সারাবিশ্ব

ইন্দোনেশিয়ার ১৫ বছর গুহায় আটকে রেখে যৌন নির্যাতন!

ইন্দোনেশিয়ার একটি গুহা থেকে ১৫ বছর পর উদ্ধার করা হয়েছে এক নারীকে। ২০০৩ সালে ১৩ বছর বয়সে ওই নারীকে ‘জিনে আছর’ করেছে বলে মগজধোলাই করে নিজ বাড়িতে নিয়ে রাখেন অভিযুক্ত এক গ্রাম্য ওঝা। এরপর সেখান থেকে তাকে গুহায় নিয়ে বন্দী করে প্রতিদিন যৌন নির্যাতন করেন ওই ব্যক্তি।

গত রোববার সুলাওয়েসি দ্বীপের গালামপাং গ্রামের পাথুরে এক ছোট্ট গুহা থেকে ওই নারীকে উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। এ ঘটনায় ৮৩ বছর বয়সী জাগো নামে ওই ওঝাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।\

পুলিশের বরাত দিয়ে বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রোববার অজ্ঞাত এক সূত্রের মাধ্যমে জানা যায়, গুহার মধ্যে এক নারীকে আটক করে রাখা হয়েছে। পরে খবর পেয়ে তাকে পাঁথরের বেষ্টনীর ভেতর থেকে উদ্ধার করা হয়।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, ১৩ বছর বয়সে ওই নারীকে তার বাবা-মা অভিযুক্ত ব্যক্তির কাছে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যান। সেখানেই মেয়েকে রেখে আসেন তারা। কিন্তু বছরের শেষ দিকে কিশোরীটি নিখোঁজ হয়ে যায়। এ সময় অভিযুক্ত জাগো কিশোরীর পরিবারকে জানান, কাজের খোঁজে সে জাকার্তা চলে গেছে। পরিবার ও স্বজনেরা অনেক খুঁজেও মেয়ের সন্ধান পাননি বলে জানিয়েছে পুলিশ।

তোলিতোলি পুলিশপ্রধান এম ইকবাল আলকুদুসি জানান, রাতের বেলা কিশোরীকে ওঝা নিজের বাড়িতে নিয়ে রাখলেও দিনে কারাগারের মতো দেখতে ছোট্ট গুহায় থাকতে বাধ্য করা হতো। তাকে একটি ছবি দেখিয়ে বলতেন, এটা জিনের ছবি। এই জিন তার মধ্যে আছে।

যৌন নির্যাতন প্রতিরোধ আইন ও শিশু নিরাপত্তা আইনে করা মামলায় অভিযুক্ত হয়েছেন ওই ওঝা। দোষী সাব্যস্ত হলে ১৫ বছরের কারাদণ্ড হতে পারে তার।

 

 

দেশরির্পোট/এএইচ


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন