খেলা

এশিয়া কাপ মিস সাকিবের!

দীর্ঘ ৪৪ দিনের ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর শেষে দেশে ফিরেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। গতকাল সকাল ৮টা ৫৫ মিনিটে নিউইয়র্ক ও দুবাই হয়ে ঢাকা হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছে টাইগাররা। এ সময় টেস্ট ও টি২০ অধিনায়ক সাকিব আল হাসান জানান, এশিয়া কাপের আগেই হাতের আঙুলের অপারেশন করাতে চান। দলের সঙ্গে ফিরেছেন ইংলিশ কোচ স্টিভ রোডস।

দলের সঙ্গে আসেননি বেশ কয়েকজন ক্রিকেটার। ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা সিরিজ শেষে ছুটি নিয়ে অবস্থান করছেন যুক্তরাষ্ট্রে। তার মতোই ছুটি নিয়েছেন তামিম ইকবাল ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ফ্লোরিডা থেকে ছুটি কাটিয়ে টি২০ সহ-অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ ওয়েস্ট ইন্ডিজ যাবেন ক্যারিবীয় প্রিমিয়ার লিগ (সিপিএল) খেলতে।

সদ্য শেষ হওয়া ক্যারিবীয় সফরের দুই টেস্টের সিরিজে হোয়াইটওয়াশের লজ্জায় পড়লেও ওয়ানডে ও টি২০-তে ঘুরে দাঁড়ায় বাংলাদেশ। দুটো সিরিজেই ২-১ ব্যবধানে জিতেছে টাইগাররা। নয় বছর পর বিদেশের মাটিতে ওয়ানডে সিরিজ জয়ের স্বাদ পায় বাংলাদেশ। আর দ্বিতীয়বারের মতো সিরিজ জেতে বাংলাদেশ। আগামীতে বিদেশে এ জয় আত্মবিশ্বাসের পুঁজি হিসেবে কাজ করবে বলে জানিয়েছেন টেস্ট ও টি২০ অধিনায়ক সাকিব।

এদিকে পুরো সফরে দলের পারফরম্যান্সে সাকিবের মতোই খুশি বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। গতকাল ওয়েস্টিন হোটেলে কয়েকজন বোর্ড পরিচালককে সঙ্গে নিয়ে অনানুষ্ঠানিক এক সভা শেষে পাপন বলেন, ‘টেস্টে ব্যর্থতার পর আমরা যেভাবে ওয়ানডে ও টি২০ ক্রিকেটে ঘুরে দাঁড়িয়ে সিরিজ জিতেছি, তাতে আমি তৃপ্ত। আশা করছি ছেলেরা এ পারফরম্যান্স এশিয়া কাপেও টেনে নিয়ে যাবে।’

গতকাল সকালে দেশে ফিরে বিমানবন্দরে সাকিব বলেন, ‘হ্যাঁ, সবকিছু মিলিয়ে বলতে গেলে আমাদের সফরটা ভালো হয়েছে। তিন ফরম্যাটের সিরিজের মধ্যে দুটোতে জিতেছি। দেশের বাইরে আমরা ভালো করতে পারি না। এক শ্রীলংকা সফর ছাড়া সাম্প্রতিক বছরগুলোয় আমাদের ভালো সফর হয়নি। সে হিসাবে এবারের ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর বেশ ভালো কেটেছে। আমি ব্যক্তিগতভাবে সন্তুষ্ট।’

তিন ফরম্যাটের সিরিজে টেস্টে ব্যাট হাতে ব্যর্থ হলেও ওয়ানডে ও টি২০-তে অলরাউন্ডিং পারফরম্যান্স করেন সাকিব। ওয়ানডে ও টি২০-তে সমান তিনটি করে ম্যাচে ২৯৩ রান করার পাশাপাশি উইকেট নিয়েছেন ৫টি। ওয়ানডেতে তার ব্যাট থেকে আসে দুই ফিফটিতে ১৯০ রান। আর টি২০-তে সমানসংখ্যক ম্যাচে ১০৩ রান। নিজের পারফরম্যান্সে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে সাকিব বলেন, ‘একটি ম্যাচে খুব কাছে গিয়ে সেঞ্চুরি পাইনি। তাতে দুঃখ নেই। আমি চেষ্টা করি দলের জন্য অবদান রাখতে। বলতে পারেন, যেমন পারফরম্যান্স করেছি তা নিয়ে আনন্দিত।’

এবারের সিরিজে দলের সিনিয়র ক্রিকেটারদের পারফরম্যান্স ছিল লক্ষণীয়। পুরো সিরিজে মোট রানের ৭১ শতাংশ এসেছে সিনিয়র ক্রিকেটারদের কাছ থেকে। তবে জুনিয়ররা ছিলেন অনেকটা নিষ্প্রভ। এ প্রসঙ্গে জুনিয়রদের পাশে দাঁড়িয়েছেন সাকিব, ‘দেখুন, আমরা সিনিয়ররা ব্যাট করি উপরের দিকে। ব্যাট করার সুযোগটা বেশি পাই, স্বাভাবিকভাবে অবদান রাখার সুযোগ আমাদেরই বেশি থাকে। তবে জুনিয়ররাও চেষ্টা করছে। আশা করি, সামনের দিনগুলোয় নিজেদের দায়িত্ব অনুযায়ী পারফরম্যান্স করতে পারবে তারা।’

এদিকে ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাতে বসছে এশিয়া কাপ ক্রিকেটের ১৪তম আসর। ছয় জাতির এ টুর্নামেন্টে বর্তমান রানার্সআপ দল বাংলাদেশ। এ সিরিজ নিয়ে আত্মবিশ্বাসী সাকিব বলেন, ‘আমাদের আত্মবিশ্বাস খুব উঁচুতে। এ রকম একটা ভালো সিরিজের পর নতুন কিছু করার চিন্তা আমরা করতেই পারি।’ আসন্ন এশিয়া কাপে সাকিব খেলবেন কিনা, তা নিয়ে আছে সংশয়। কেননা তার বাঁ হাতের আঙুলের চোটটা আবার নতুন করে দেখা দিয়েছে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজে টি২০ সিরিজে অ্যান্টিবায়োটিক ইনজেকশন নিয়ে ম্যাচ খেলেছেন সাকিব। বিসিবির প্রধান চিকিৎসক ডা. দেবাশীষ চৌধুরী জানিয়েছেন, আঙুলে এ ধরনের চোট শতভাগ নিরাময় হয় না। তবে অস্ত্রোপচার করলে ৭০-৭৫ ভাগ নিরাময় হয়। চোটের বিষয়ে সাকিবের ভাষ্য, ‘আমি শুধু জানি, আমার আঙুলে ব্যথা অনুভূত হচ্ছে। আমার চেয়ে ভালো দলের ফিজিও ও চিকিৎসক বলতে পারবেন। তারা বলেছেন, অস্ত্রোপচার করাটা দীর্ঘ সময়ের জন্য ভালো। এখন আলোচনা হচ্ছে কোথায় করলে আর কবে করলে ভালো হয়। তবে আমি মনে করি, যত তাড়াতাড়ি সম্ভব করে ফেলা ভালো। খুব সম্ভবত এশিয়া কাপের আগেই হবে। আমি মনে করি, পুরোপুরি ফিট না হয়ে খেলা উচিত নয়।’


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন