প্রধান সংবাদসারাবিশ্ব

বাংলা রাজ্য থেকে তৃণমূলকে উৎখাতের ডাক দিয়েছেন অমিত শাহ

ভারতের বাংলা রাজ্য থেকে তৃণমূলকে উৎখাতের ডাক দিয়েছেন দেশটির ক্ষমতাসীন দল বিজেপির সভাপতি অমিত শাহ। তিনি বলেছেন, ‘১৯টি রাজ্যে আমরা ক্ষমতায় রয়েছি। তবে বাংলা দখল ছাড়া তার কোনো দাম নেই। শ্যামাপ্রসাদের রাজ্যে বিজেপিকে ক্ষমতায় আনতে চাই আমরা।’

শনিবার কলকাতার মেয়ো রোডে ভারতীয় জনতা যুব মোর্চা (বিজেওয়াইএম) আয়োজিত যুব স্বাভিমান সমাবেশ এ কথা বলেন তিনি। খবর আনন্দবাজার পত্রিকা ও ২৪ঘণ্টার।

অমিত শাহ আরও বলেন, ‘আমি বাংলার সব জেলায় যাব। প্রচার করব। তৃণমূলকে উৎখাত করেই ছাড়ব।’ বিজেপির সর্বভারতীয় এই সভাপতি বলেন, ‘আগে এ রাজ্যে ভজন, শ্রী কৃষ্ণের কীর্তন শোনা যেত। এখন বোমা ফাটার খবর আসে। রাজ্যে একের পর এক শিল্প পাততাড়ি গোটাচ্ছে। অথচ আজ এখানে বোমা কারখানা তো কাল সেখানে অস্ত্র কারখানার খবর মিলছে।

অমিত শাহ’র অভিযোগ, যুবমোর্চার সভায় যাতে লোক না আসতে পারে, সে জন্য বাধা দেওয়ার চেষ্টা করেছে তৃণমূল। তবে তারা পারেনি। বিভিন্ন জায়গায় চ্যানেল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। তবে এসব করেও বিজেপিকে আটকানো যাবে না।

দলীয় কর্মীদের নির্দেশ দিয়ে তিনি বলেন, ‘মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রচার করুন। ২০১৯ সালে ২২টি আসন নিশ্চিত করতে হবে। তারপর ২০২১ সালে বাংলায় ক্ষমতায় আসব আমরা। বিজেপি ক্ষমতায় এলে দুর্গাপূজার বিসর্জন আটকাবে না, স্কুলে স্কুলে সরস্বতী পূজাও হবে।’

দেশের আর্থিক উন্নয়নে পশ্চিমবঙ্গের অংশগ্রহণ ক্রমশ কমছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘স্বাধীনতার পরে দেশের আর্থিক উন্নয়নে ২৫ শতাংশ ছিল বাংলার। কংগ্রেস সরকার ক্ষমতা থেকে সরার আগে তা নেমে আসে ১৩ শতাংশে। বামেরা যাওয়ার সময়ে আরও কমে তা হয়ে যায় ৪ শতাংশ। গত ৭ বছরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দেশের আর্থিক উন্নতিতে বাংলার অংশ ৩ শতাংশে নামিয়ে দিয়েছেন। সিপিএম, তৃণমূল ও কংগ্রেস উন্নয়ন করতে ব্যর্থ হয়েছে। তিনটি দলকেই সুযোগ দিয়েছেন বাংলার মানুষ। এবার একটা সুযোগ দিন নরেন্দ্র মোদিকে। বাংলায় উন্নয়ন করব আমরা।’

 

দেশরির্পোট/এসআর


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন