অর্থনীতিপ্রধান সংবাদ

১’শ টাকার ওপরে শিম-বেগুন!

রাজধানীর কাঁচাবাজারগুলোতে গত সপ্তাহের তুলনার বেশিরভাগ সবজির দাম কমলেও এখনো চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে বেশ কয়েকটি সবজি। এর মধ্যে রয়েছে- শিম, বেগুন, টমেটো ও গাজর। সবজিগুলোর কেজি ১০০ টাকা ওপরে বিক্রি হচ্ছে। শুক্রবার (১৭ আগস্ট) রাজধানীর কারওয়ানবাজার, রামপুরা, মালিবাগ হাজীপাড়া, খিলগাঁও, সেগুনবাগিচা এবং শান্তিনগরের বিভিন্ন বাজার ঘুরে এমন তথ্য পাওয়া গেছে।

বাজারে সব চেয়ে বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে শীতের আগাম সবজি শিম। বাজার ও মান ভেদে প্রতিকেজি শিম বিক্রি হচ্ছে ১২০ থেকে ১৪০ টাকায়। তবে গত সপ্তাহে বাজার ভেদে শিমের দাম ছিল ১৪০-১৬০ টাকা কেজি।

এছাড়া বাজারে প্রতিকেজি ১০০ টাকা বা তার থেকে বেশি দামে বিক্রি হওয়া সবজি টমেটো। বাজার ও মানভেদে এ সবজি বিক্রি হচ্ছে ১০০-১২০ টাকা কেজি। গত সপ্তাহেও এমন দামেই বিক্রি হয়েছে টমেটো।

বেগুন মান ও বাজার ভেদে বিক্রি হচ্ছে ৬০-৮০ টাকা কেজি। সপ্তাহের ব্যবধানে এ সবজিটির দাম কেজিতে বেড়েছে ২০ টাকারও বেশি। গত সপ্তাহে বেগুন বিক্রি হয় ৪০-৫০ টাকা কেজি। এছাড়া চড়া দামে বিক্রি হওয়া আর এক সবজি হলো গাজর। বাজারে ৮০-১০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে গাজর।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, শীতের আগাম সবজি হওয়ার কারণে শিমের দাম চড়া। আর টমেটো ও গাজরের মৌসুম এখন নয়। বাজারে যে পাকা টমেটো বিক্রি হচ্ছে তা আগে থেকে মজুদ করা। গাজর কিছু মজুদের, কিছু আমদানি করা। যে কারণে এসব পণ্যের দাম চড়া।

কারওয়ানবাজারের ব্যবসায়ী মো. রইস বলেন, শিমের দাম আর কিছুদিন ১০০ টাকার ওপরে থাকবে। বাজারে পুরোদমে শিম আসতে শুরু করলে দাম কমবে। তার আগে শিমের দাম কমার খুব একটা সম্ভাবনা নেই।

ব্যবসায়ী ইমাদ আলী বলেন, বাজারে এখন যেসব টমেটো ও গাজর পাওয়া যাচ্ছে তার বেশিরভাগ মজুদের। এর সঙ্গে কিছু গাজর আছে আমদানি করা। ফলে এ পণ্য দুটির সরবরাহ এখন কিছু ব্যবসায়ীর নিয়ন্ত্রণে। যে কারণে দাম চড়া। টমেটো ও গাজর উভয় পণ্যর ভরা মৌসুম শীতকাল। শীতের সময় এ সবজি দুটি বাজারে ভরপুর পাওয়া যাবে, তখন দামও কম থাকবে।

এদিকে শিম ও গাজরের মতো চড়া দাম না হলেও কিছুটা বাড়তি দামেই বিক্রি হচ্ছে ফুলকপি, উস্তে ও বরবটি। বাজার ভেদে ছোট আকারের ফুলকপি বিক্রি হচ্ছে ৩০-৪০ টাকা। উস্তের কেজি ৫০-৬০ টাকা এবং বরবটি বিক্রি হচ্ছে ৪০-৫০ টাকা কেজিতে। এছাড়া পটল, ঝিঙা, ধুন্দল, চিচিংগা, কাকরল, ঢেঁড়স, মিষ্টি কুমড়া, পেঁপের দাম কিছুটা কমেছে। কিছু বাজারে এ সবজিগুলো ৩০ টাকা কেজির মধ্যেই পাওয়া যাচ্ছে।

দাম কমার তালিকা আছে মুরগি। সাদা বয়লার মুরগির দাম কেজি ১০ টাকার মতো কমে বিক্রি হচ্ছে ১৩৫-১৪০ টাকায়। লাল লেয়ার মুরগির দাম কেজিতে কমেছে প্রায় ৩০ টাকা। গত সপ্তাহে ২৫০-২৬০ কেজি বিক্রি হওয়া লাল লেয়ার মুরগি আজ বিক্রি হচ্ছে ২২০-২৩০ টাকায়।

গত এক মাসের বেশি সময় ধরে চড়া দামেই বিক্রি হচ্ছে কাঁচামরিচ। গত সপ্তাহে ১২০ থেকে ১৪০ টাকা কেজি ধরে বিক্রি হওয়া কাঁচামরিচের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। অপরিবর্তিত রয়েছে পেঁয়াজের দামও। আগের সপ্তাহের মতো দেশি পেঁয়াজ ৫৫-৬০ টাকা এবং আমদানি করা পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৩৫-৪০ টাকা কেজিতে।

এদিকে খিলগাঁওয়ের ব্যবসায়ী মো. কামাল বলেন, বৃষ্টি ও শিক্ষার্থীদের আন্দোলন থামায় কিছু সবজির দাম কমেছে। এছাড়া ঈদের প্রভাবও আছে কিছুটা। ঈদ করতে অনেকে গ্রামের বাড়ি যাওয়া শুরু করেছেন, যে কারণে কিছুটা হলেও সবজির চাহিদা কমেছে।

রামপুরার ব্যবসায়ী খায়রুল বলেন, বৃষ্টির কারণে সবজির দাম কিছুটা বেড়েছিল। কিন্তু এখন বৃষ্টি নেই তাই অনেক সবজির দামও কিছুটা কমেছে। টানা বৃষ্টি না হলে এসব সবজির দাম বাড়ার খুব একটা সম্ভাবনা নেই।

 

দেশরির্পোট/এসআর


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন