সারাদেশ

ব্যস্ত সময় পার করছেন প্রতিমা শিল্পীরা!

হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজার আর মাত্র কয়েকদিন বাকি। দুর্গাপূজাকে সামনে রেখে উপজেলার পূজা মন্ডপগুলোতে প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন শিল্পীরা। এ বছর রাণীনগর উপজেলায় ৪৯টি মন্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হবে বলে জানা গেছে। মন্দিরগুলোতে চলছে সাজসজ্জার প্রস্তুতি। ইতোমধ্যে বেশিরভাগ মন্ডপগুলোতে প্রতিমার কাঠামোর কাজ প্রায় শেষ। শুরু হয়েছে রং তুলি ও সাজসজ্জার কাজও।

স্থানীয় ছাড়াও বিভিন্ন স্থান থেকে আগত শিল্পীরা এখানে এসে প্রতিমা তৈরি ও রং তুলির কাজ করছেন। অন্যদিকে প্রতিমার পাশাপাশি পূজাকে জাঁকজমকপূর্ণ করে তুলতে বাদ্যযন্ত্র তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন ঢাকঢোল, কাঁসর ও বাঁশির কারিগররা।
প্রতিমা শিল্পী শ্রী নিমাই চন্দ্র বলেন, মাটির কাজ শেষ হলেই শুরু হবে রং তুলির আঁচড়। প্রতিমাগুলো মনোমুগ্ধকর ও নিখুুঁতভাবে ফুটিয়ে তুলতে সর্বোচ্চ মনোযোগ দিয়ে কাজ করছি। আশা করছি নির্ধারিত সময়ের আগেই শেষ হবে প্রতিমা তৈরির কাজ।
উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদ কমিটির সভাপতি শ্রী চন্দন কুমার মহন্ত বলেন, এ বছর সার্বজনীন ও ব্যক্তিগত মিলিয়ে ৪৯টি মন্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হবে। আমরা শারদীয় দুর্গাপূজাকে সামনে রেখে প্রায় সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছি। আনন্দঘন ও জাঁকজমকপূর্ণভাবে পূজা শেষ হবে বলে তিনি আশা করেন।

থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সিদ্দিকুর রহমান বলেন, হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। প্রশাসনের পক্ষ থেকে মন্দিরগুলোতে নিরাপত্তাসহ শান্তিপূর্ণভাবে এ উৎসব সম্পন্ন করার লক্ষ্যে সব প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।
অন্যান্য বছরের চাইতে এবার বেশি প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। প্রতিটি মন্দিরে পুলিশের পাশাপাশি আনসার ও গ্রামপুলিশ মোতায়েন করা হবে। পূজায় কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটবে না বলে আশা করছেন তিনি।

 

 

দেশরির্পোট/রবিন


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন