বিনোদন

যৌন হেনস্থা নিয়ে মুখ খুললেন ঐশ্বরিয়া!

যৌন হেনস্থার বিরুদ্ধে সরব হচ্ছেন বলিউডের একের পর এক অভিনেত্রী। ফলে ‘মি টু’ ঝড়ে ইতিমধ্যেই নাম জড়িয়েছে বলিউডের জনপ্রিয় প্রযোজক থেকে শুরু করে পরিচালক কিংবা অভিনেতার। নানা পাঠেকর থেকে শুরু করে বিকাশ বহেল, গণেশ আচার্য কিংবা অলোকনাথ বলিউডের একাধিক জনপ্রিয় মুখকে নিয়ে ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে বিতর্ক। আর এবার ‘মি টু ক্যাম্পেইন’ নিয়ে মুখ খুললেন ঐশ্বর্য রাই বচ্চন।

সম্প্রতি এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে বহু বচ্চন বলেন, বর্তমান মহিলারা যেভাবে যৌন হেনস্থার বিরুদ্ধে মুখ খুলছেন, তাকে কুর্ণিশ জানাচ্ছেন তিনি। আপনি বিশ্বের যে কোনও প্রান্তেই থাকুন না কেন, যৌন হেনস্থার বিরুদ্ধে আপনার অভিযোগ সংবাদমাধ্যম এখন গুরুত্ব দিয়ে শুনতে শুরু করেছে। এবং সবার সামনে তা প্রকাশিত হচ্ছে। এটা অত্যন্ত ভাল পদক্ষেপ বলেও মনে করেন প্রাক্তন বিশ্বসুন্দরী।

ঐশ্বর্য আরও বলেন, মহিলাদের উপর হেনস্থার ঘটনা এই নতুন নয়। বহুকাল ধরে এসব চলে আসছে অহরহ। কিন্তু, মহিলারা যে এবার যৌন হেনস্থার বিরুদ্ধে মুখ খুলতে শুরু করেছেন, তা দেখে ভাল লাগছে বলে জানান ঐশ্বর্য রাই।

এদিকে সম্প্রতি সলমনের একটি ভিডিও ভাইরাল হয়। যেখনে সলমন খান-কে হাজির হতে দেখা যায়। সংবাদমাধ্যমের সাক্ষাতকারে ঐশ্বর্য রাইয়ের সঙ্গে সলমন খানের বিচ্ছেদ এবং শারীরিক হেনস্থা নিয়ে ‘ভাইজান’-কে করা হয় প্রশ্ন। জিজ্ঞাসা করা হয়, ঐশ্বর্য যে অভিযোগ করছেন, তা কতটা সত্যি? যার উত্তরে প্রথমে হেসে ফেলেন সলমন খান। এরপর বলেন, তিনি যদি ঐশ্বর্যর গায়ে হাত তুলতেন, তাহলে তাঁর প্রাক্তন বান্ধবী শারীরিকভাবে সুস্থ থাকতে পারতেন না।

শুধু তাই নয়, এর আগে প্রভু চাওলা নামে এক সংবাদিকও তাঁকে এই একই প্রশ্ন করেছিলেন। যার উত্তরে সলমন বলেন, প্রভুর প্রশ্নে তিনি এত জোরে সামনে থাকা টেবিলের উপর আঘাত করেছিলেন যে প্রভু কেঁপে উঠেছিলেন। সেই উদাহরণ টেনে সলমন স্পষ্ট ইঙ্গিত দেন, তিনি যদি সত্যিই ঐশ্বর্যর গায়ে হাত তুলতেন, তাহলে ঐশ্বর্যর বেঁচে থাকা সম্ভব হত না।  সালমান খানের এই ভিডিও প্রকাশ্যে আসার পরই হু হু করে তা ভাইরাল হয়ে যায়। ঐশ্বর্য সম্পর্কে সলমন কীভাবে এই ধরনের ‘নির্লজ্জ’ মন্তব্য করতে পারেন, তা নিয়েও উঠতে শুরু করেছে প্রশ্ন।

এদিকে সম্প্রতি নানা পাঠেকর এবং তনুশ্রী দত্তের বিতর্ক নিয়ে প্রশ্ন করা হয় সালমান  খান-কে। উত্তরে  সালমান বলেন, তিনি বিষয়টি সঠিকভাবে জানেন না। তবে যদি এই ধরনের কোনও ঘটনা ঘটে থাকে, তা অনুচিত। ফলে আইন আইনের পথে চলবে বলেও মন্তব্য করেন সলমন খান।

 

 

দেশরির্পোট/হিমেল

 


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন