সাহিত্য

বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে দীপংকর দীপকের দুটি কবিতা

চলছে শোকাবহ আগষ্ট। ১৫ আগষ্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে। তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা রেখে দুটি কবিতা লিখেছেন সাংবাদিক-সাহিত্যিক দীপংকর দীপক।

বঙ্গবন্ধু

বঙ্গবন্ধু আমার হৃদয়ে চিরদিন বহমান
বঙ্গবন্ধু কোটি বাঙালির একত্রিত প্রাণ

বঙ্গবন্ধু উত্তাল সাগরের নির্ভিক মাঝির নাম
বঙ্গবন্ধু ভয় করে জয়, পথ চলে অবিরাম

বঙ্গবন্ধু ফসলের মাঠের সবুজ-সোনালী সুবাস
বঙ্গবন্ধু কৃষাণীর মুখের চাঁদনী হাসির প্রকাশ

বঙ্গবন্ধু আঁধার রাতের উজ্জ্বল ধ্রুব তারা
বঙ্গবন্ধু বটবৃক্ষের মতো আশ্রয় পথহারা

বঙ্গবন্ধু লাখো জনতার প্রাণের জাগরুক
বঙ্গবন্ধু মহাকবি, মহাকালের মহানায়ক

বঙ্গবন্ধু অন্যায়ের বিরুদ্ধে চিরবিদ্রোহী পিতা
বঙ্গবন্ধু বাংলা-বাঙালির স্বাধীনতার ইতিকথা

বঙ্গবন্ধু বিজয়ীবেশে বিশ্বে করে বিচরণ
বঙ্গবন্ধু হাসি মুখেই মরণকে করে বরণ

১৯-০৮-১৭/ঢাকা

বঙ্গবন্ধু মরেনি

১৫ আগষ্টের কাকডাকা ভোরে, বিভ্রান্ত সেনারা উদ্ভ্রান্ত হয়ে
ভারি ভারি অস্ত্র হাতে ঢুকে পড়ে ধানমণ্ডির ৩২ নম্বরে-
তারা অঝোরে গুলি করে চলে;
চারদিকে হইচই, ক্রন্দনরোল- প্রাণ রক্ষার আর্তচিৎকার
বঙ্গবন্ধু বুঝলেন, কিছু একটা হচ্ছে। দেরি করলেন না মোটেও।
পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে দরজা খুলে চলে এলেন- বাইরে
সামনে অস্ত্র হাতে হিংস্র সেনারা, তাক করে আছে বন্দুকের নল
বঙ্গবন্ধুর- বুক বরাবর। কিন্তু তিনি স্বাভাবিক। ভয় পেলেন না-
পিছু হটলেন না
এগোতে থাকলেন
মুখে মৃদু হাসি
শান্ত দুই চোখ
ডান হাতে পাইপ
বাঁ হাতে লুঙ্গির খোঁট
এক কদম দুই কদম করে সিঁড়ি ভেঙে এগিয়ে চলছেন- সম্মুখে
সেনারা- হতভম্ব। তাদের হাত কাঁপছে। দরদর করে ঝরছে ঘাম
তারপরেও নিজেদের নিয়ন্ত্রণ করে ট্রিগার টানতে চেষ্টা করলেন।
এবার বঙ্গবন্ধু পাইপ উঁচিয়ে হুংকার দিয়ে তাদের বললেন,
‘কাঁপছো কেন? তবে- চালাও গুলি! অপদার্থের দল- সব!’
ধমক খেয়ে সেনাদের হাতের বন্দুক পড়ে গেল। মুহূর্তেই তারা বঙ্গবন্ধুর
পায়ে নুইয়ে পড়লেন। এবার অভিমানী বঙ্গবন্ধু ধীরকণ্ঠে বললেন,
‘উঠ- বৎসরা। তাহলে ধর হাল। আজ আমি বড়ই ক্লান্ত-ভারাক্রান্ত!’
রাজপথে লাখো জনতা। সবার চোখ অশ্রুসজল। বিচলিত দেশবাসী।
বঙ্গবন্ধু একের পর এক লাশের রক্তনদী পেরিয়ে রাস্তায় চলে এলেন-
মাথা উঁচু করে বিমর্ষ জনতাকে এক পলকের জন্য দেখে নিলেন।
অতঃপর…
লুপ্ত হলেন জনতার মাঝে।
সেই থেকে প্রতিটি বাঙালি হয়ে উঠল এক একজন বঙ্গবন্ধু
সেই থেকে আমাদের বঙ্গবন্ধু হয়ে গেলেন অমর-অক্ষয়।

২০-০৭-১৮, ঢাকা।


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

Tags

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন