সারাবিশ্ব

‘কী পেলাম, আর কী হলাম- এটা রাজনীতি নয়-মমতা

কে কী পেলেন সেই হিসাবকে রাজনীতি মনে করেন না ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

শুক্রবার কলকাতায় নেতাজি ইন্ডোরে দলের বর্ধিত সাধারণ পরিষদের সভায়তিনি এ মন্তব্য করেন বলে আনন্দবাজার পত্রিকার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

মমতা বলেন, ‘আমি কী পেলাম, আর কী হলাম- এটা রাজনীতি নয়।’ বক্তব্যে তৃণমূল নেতা-কর্মীদের স্পষ্ট ভাষায় হুঁশিয়ারি দেন তিনি।

পদ আর প্রাপ্তির হিসেব নিয়ে দলকে এর আগেও বহু বার সতর্ক করেছেন মমতা। শুক্রবার তাতে নতুন মাত্রা যোগ করে শাস্তির বিধানও দিলেন তৃণমূলনেত্রী। প্রায় সব স্তরের এই প্রবণতায় অসন্তোষ প্রকাশ করে বিধায়কদের বেতন কাটার মধ্যে দিয়েই সেই কাজ শুরু করার কথাও বলেছেন তিনি।

মমতা বলেন, ‘অনেক পেয়েছেন। চাওয়া বন্ধ করুন। এ বার দেওয়া শুরু করুন। পঞ্চায়েত, জেলা পরিষদ, পুরসভা, কর্পোরেশন সব পেয়েছেন। আর কী চাই? এ বার কাজ করুন।’

নেতাদের দুর্নীতি সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘কে কোথা থেকে টাকা তোলে, ভাবে দিদির কাছে খবর আসে না। দিদির কাছে সব খবর কিন্তু আসে।’

পদ পেতে তৎপর দলের নেতাদের উদ্দেশে মমতা বলেন, ‘ভোটে প্রার্থী হতে লবিং করবেন না। লবিং করলে আমি কেটে দেব। দল এমনিতেই নেতা খুঁজে নেবে।’

নেতা-কর্মীদের একাংশের নিষ্ক্রিয়তার প্রশ্নে দলের বিধায়কদের কাঠগড়ায় তুলে মমতা বলেন, ‘এমএলএ-রা ঠিকমতো বিধানসভা না-করলে টাকা কেটে নেওয়া হবে। অসুস্থ থাকলে অনুপস্থিতির কথা পার্টিকে জানান।’

বিধায়কেরা অবশ্য উপস্থিতির ভিত্তিতেই বিধানসভার বেতন-ভাতা পান। মন্ত্রীদের উদ্দেশেও মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘কয়েকজন মন্ত্রী কিছুই করেন না। দল করতে হবে। সরকারের কাজও করতে হবে।’

দলের তহবিল সংগ্রহে এ দিন অনলাইন চাঁদা সংগ্রহের কথা জানান তৃণমূলনেত্রী। নির্বাচনের আগে অর্থ সংগ্রহের জন্য ৫, ১০, ৫০০ ও হাজার টাকা চাঁদা নেবে তৃণমূল।

 

এসবি


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন