সারাবিশ্ব

হত্যার পর খাশোগির মোবাইল হ্যাকিংয়েরও চেষ্টা

সৌদি আরবের সাংবাদিক জামাল খাশোগির হত্যাকাণ্ড নিয়ে প্রতিদিনই চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশ করছে তুরস্কের সংবাদমাধ্যমগুলো। এরই জের ধরে গতকাল তুর্কি সংবাদমাধ্যম টিআরটি জানিয়েছে, হত্যার পর খাশোগির মোবাইল ফোন হ্যাক করার চেষ্টা করে সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাত। ইসরায়েলের হ্যাকারদের তত্ত্বাবধানে তা করা হয়েছে বলে দাবি করে সংবাদমাধ্যমটি।

গতকাল বুধবার এক প্রতিবেদনে টিআরটি জানিয়েছে, গুপ্তচরের ওপর নজরদারি বাড়াতে ইসরায়েলের হ্যাকারদের ব্যবহার করেছে সৌদি আরব। হ্যাকাররা খাশোগির মোবাইল ফোনের সিস্টেমে প্রবেশের চেষ্টার পর পরই তাদের নজরদারির বিষয়টি বেরিয়ে আসে।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, তথ্য চুরির ক্ষেত্রে ইসরায়েলের এনএসও গ্রুপ নির্মিত সফটওয়্যার ‘পেগাসাস থ্রি’ ব্যবহৃত হয়েছে। এর মাধ্যমে মোবাইলের ক্যামেরা ও মাইক্রোফোনের মাধ্যমে চালানো হয় নজরদারি। এ ছাড়াও হোয়াটসঅ্যাপ, ম্যাসেঞ্জার ও ই-মেইল গুপ্তচরবৃত্তির অন্যতম মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার করেছে ইসরায়েলি হ্যাকাররা।

সৌদি আরবে দুর্নীতি বিরোধী অভিযান চালানোর আগে ১৫৯ প্রিন্স ও ধনকুবেরের মোবাইল ফোনে নজরদারি চালায় সালমান প্রশাসন। এই তালিকায় কাতারের আমির শেখ তামীম ও লেবাননের প্রধানমন্ত্রী সাদ হারিরি ছিলেন।

ওই নজরদারিতে সৌদি সাংবাদিক জামাল খাশোগিও অন্তর্ভুক্ত ছিলেন বলে দাবি করেছেন মার্কিন গোয়েন্দা কর্মকর্তা এডওয়ার্ড স্নোডেন।

ভিন্ন মতাবলম্বীদের নজরদারিতে রাখার উদ্দেশ্যে ইসরায়েলের গুপ্তচরবৃত্তির সহায়তা নিয়েছে সৌদি আরব, বাহারাইন, আরব আমিরাত।

 

সিএসবি


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন