রাজনীতি

ঐক্যফ্রন্টের বিরুদ্ধে ভোট বিপ্লব হবে: ওবায়দুল কাদের

ঐক্যফ্রন্টের বিরুদ্ধে এবার ভোট বিপ্লব হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, ‘এবার ভোট বিপ্লব হবে। জগাখিচুড়ি ঐক্যফ্রন্টের বিরুদ্ধে এবার ভোট বিপ্লব হবে।’

শনিবার (১ ডিসেম্বর) দুপুরে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই মন্তব্য করেন।

নির্বাচন নিয়ে উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছুই নেই উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘যারা উদ্বিগ্ন হচ্ছেন, দেশি বিদেশি সবাইকে বলতে চাই, এবারের নির্বাচন খুব সুন্দর হবে। অনুকূল পরিবেশে জনগণ যাকে খুশি তাকে ভোট দিতে পারবেন। এখানে সরকারের পক্ষ থেকে কোনও ধরণের হস্তক্ষেপ হবে না। নির্বাচন কমিশনকে যে ধরনের সহায়তা প্রয়োজন, শেখ হাসিনার সরকার সব ধরনের সহায়তা করছে।’

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির ভূমিকা প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘তারা এখনও নির্বাচন বানচাল করা থেকে পিছু হটেনি। আমাদের আশঙ্কা হচ্ছে যে, তারা নাশকতা ও সহিংসতার পথে যেতে পারে। তারা যা যা বড় গলায় বলেছিল, এক মাসের মধ্যে চেহারা পাল্টায় দেবো। চেহারা কোথায় পাল্টালো? মওদুদ সাহেব বলেছেন, তাকে হাজার হাজার মানুষ এসকর্ট করে এলাকায় নিয়ে যাবে। কই, সে ছবি বাস্তবে নেই। এমনকি মনোনয়ন জমা দেওয়ার শেষ দিনে ঢাকায় বিএনপির যে শোভাযাত্রা ছিল, তাতে কোনও উৎসব ছিল না। কারণ তারা বুঝে গেছে এই নির্বাচনে তাদের জয়ের কোনও আশা নেই। তাদের এখন কথা ছাড়া কোনও পুঁজি নেই। তারা যদি নাশকতা করে, এবার দেশের জনগণই প্রতিরোধ করবে।’

জামায়াতের অনেককেই বিএনপির মনোনয়ন দেওয়ার বিষয়টি আওয়ামী লীগ কীভাবে দেখছে জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘জামায়াত এবং বিএনপির নীতি আদর্শ একই। আগে মনে করা হতো স্ট্র্যাটেজিক বিষয়ে তারা সঙ্গে আছে কিন্তু না, স্ট্র্যাটেজিক কোনও বিষয় না। তাদের সম্পর্কটা একেবারেই নীতি আদর্শের ব্যাপার। তাদের উদ্দেশ্য, লক্ষ্য এবং কর্মকাণ্ড একই। সারা বছরই তারা একসঙ্গে কাজ করে। এখানে লুকোচুরির কিছু নেই। নিষিদ্ধ করার বিষয় আদালতের এখতিয়ারে। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে জামায়াতকে নিষিদ্ধ করা আমাদের এখতিয়ার না, আদালতের বিষয়। আমার বিশ্বাস, জামায়াতের ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রের যে পর্যবেক্ষণ, আমার মনে হয় আদালতের গোচরেও তা গেছে।’

হাউজ অব কমন্স ও কংগ্রেসের প্রতিবেদনে নিয়ে আমরা মাথা ঘামান না উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র-যুক্তরাজ্যে গণতন্ত্রের চর্চা আছে। তবে হাউস অব কমন্স, কংগ্রেসে তারা যেসব আলোচনা করেন, এখানে নানা বিষয় আসে। সেখান থেকে একটা বিষয় নিয়ে স্বার্থের অনুকূলের অংশ নিয়ে ব্যবহার করে, এটা হয়তো আপাতদৃষ্টিতে সমস্যার কারণ। হয়তো টোটাল প্রতিবেদন একরকম। সেখান থেকে কোনও একটা অংশ নিয়ে, কেউ কেউ রাজনৈতিক স্বার্থে নির্বাচনের ওপর প্রভাব বিস্তারে, অনেকেই এসব করে থাকে। নির্বাচন আসলে এগুলো বেশি হয়। তাই প্রতিবেদনে কী কী থাকলো এটা আমাদের দেখার বিষয় না। আমাদের পক্ষে বললেও আমরা সেটাকে এভাবে দেখবো না। কী প্রতিবেদনে আসলো সেটা নিয়ে আমরা মাথা ঘামাই না। আমরা দেখবো জনগণের সমর্থন। আমাদের কনফিডেন্স আছে, বাংলাদেশের জনগণ আওয়ামী লীগকে ভোট দেবে। মানুষ আজ সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছে। আমাদের বিশ্বাস সারাদেশে নৌকার পক্ষে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে। বিজয়ের মাসে আওয়ামী লীগ বিজয়ী হবে।’

নির্বাচনের পরিবেশ নষ্ট করার ব্যাপারে বিএনপির অভিযোগের প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘নির্বাচনের পরিবেশ শুরুতেই তারা নষ্ট করেছে। কিন্তু এখন আর সেই অবস্থা নেই। সেই অবস্থা কাটিয়ে এখন সুন্দর একটা পরিবেশ বিরাজ করছে। বিদেশি যারা আসছেন, তারা আমাদের সঙ্গে দেখা করেছেন এবং ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গেও কথা বলেছেন।  তারা পরিস্থিতি অনুকূল পাচ্ছেন। বিএনপি শঙ্কা করবে, এটা তাদের পুরানো অভ্যাস। পাঁচটি সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ভোট গণনা পর্যন্ত তারা শঙ্কা প্রকাশ করেছে। এটা তাদের পুরানো অভ্যাস, এটা তারা করবেই। একটা ভাঙা রেকর্ড, এটা তারা বাজাতেই থাকবে। এ নিয়ে আমাদের মাথা ব্যথা নেই। কারণ আমরা জানি সুষ্ঠু, সুন্দর, স্বচ্ছ একটা নির্বাচন হবে। পরিবেশ নষ্ট করে আমাদের লাভ কী? ক্ষতিটা তো আমাদেরই হবে।’

সংবাদিকরা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদককে জানান, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর অভিযোগ করেছেন- আপনি মনোনয়ন জমা দিতে গিয়ে আচরণবিধি লঙ্ঘন করেছেন। এমন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে তিনি বলেন, ‘তাদের গুণধর ব্যারিস্টার সাহেব আগের দিন জমা দিয়েছেন। উনি তো শো ডাউন করেছেন লাঠি নিয়ে। মওদুদ সাহেব যদি শো-ডাউন না করতেন, তাহলে আমাকে বলতে পারতেন। আমি কাউকে বলিনি শো-ডাউন করার জন্য। আমি দুইশ’ গজের মধ্যে কাউকে যেতে দেইনি। শুধু আমার পার্টির উপজেলা পর্যায়ের ৮-১০ জন নেতা নিয়ে গেছি। ২৬ তারিখে লাঠি নিয়ে মওদুদ সাহেব যে শো-ডাউন করলেন তাতে কি আচরণবিধি লঙ্ঘন হয় নি?

মার্কিন কংগ্রেসের পক্ষ থেকে যেভাবে সহায়তা করার কথা সেরকম সহায়তা বিএনপি পাচ্ছে না বলে মির্জা ফখরুলের অভিযোগের ব্যাপারে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এই প্রশ্ন মার্কিনিদের করা উচিত। মার্কিনিরা কী আমাদের কথায় চলে? মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কার পক্ষে থাকবে, এটা তাদের ব্যাপার। এতো দেন দরবার করে সাড়া পাচ্ছেন না কেন, এই জবাব বিএনপিকেই দিতে হবে, এখানে আমাদের করার কিছু নেই।’

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, আহম্মদ হোসেন, বি এম মোজ্জামেল, তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক আফজাল হোসেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক আব্দুস সবুর, উপ দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য এস এম কামাল হোসেন, আনোয়ার হোসেন প্রমুখ।

 

 

 

সিএসজি

 

 


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন