বিনোদন

আট দিন পর দেশে আসছে আমজাদ হোসেনের মরদেহ!

গত শুক্রবার (১৪ ডিসেম্বর) দুপুরে ব্যাংককের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন বরেন্য ব্যক্তিত্ব আমজাদ হোসেন। তার মৃত্যুর খবর মুহূর্তেই ছড়িয়ে পড়ে দেশ জুড়ে। এরপর থেকে আত্মীয়-স্বজন, সহকর্মী থেকে শুরু করে ভক্ত-শুভাকাঙ্ক্ষীরা উদগ্রীব হয়ে আছেন প্রিয় মানুষটিকে শেষবারের মতো দেখার অপেক্ষায়।

ব্যাংককে নানা জটিলতা কাটিয়ে আজ শুক্রবার সন্ধ্যায় দেশে আনা হচ্ছে বরেণ্য নির্মাতা আমজাদ হোসেনের মরদেহ। মৃত্যুর আট দিনের মাথায় দেশে ফিরছে তার প্রাণহীন নিথর দেহ।

আমজাদ হোসেনের পরিবার তথ্যমতে, আজ সন্ধ্যা ৭টায় তাকে বহনকারী উড়োজাহাজটি বাংলাদেশের মাটি স্পর্শ করবে। সেখান থেকে তার মরদেহ নিয়ে যাওয়া হবে আদাবরে নিজ বাসভবনে। সেখানে আত্মীয় স্বজনরা তাকে শেষবারের মতো দেখার সুযোগ পাবেন। রাতেই তার প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হবে স্থানীয় বায়তুল আমান জামে মসজিদে। এরপর তার মরদেহ সংরক্ষণের জন্য বারডেম হাসপাতালের হিমাগরে নিয়ে যাওয়া হবে।

শনিবার (২২ ডিসেম্বর) সকাল ১১টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত কেন্দ্রিয় শহীদ মিনারের পাদদেশে রাখা হবে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদেনের জন্য। শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে এই কিংবদন্তির মৃতদেহ নিয়ে যাওয়া হবে এটিএন বাংলায়। তারপর তার প্রিয় কর্মস্থল এফডিসিতে নেয়া হবে। যেখানে তিনি জীবদ্দশায় বেশিরভাগ সময় কাটিয়েছেন। সৃষ্টি করেছেন কালজয়ী সব চলচ্চিত্র। এফডিসিতে বাদ যোহর তার জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। সবশেষ তাকে চ্যানেল আইতে নেয়া হবে।

আমজাদ হোসেনের শেষ ইচ্ছা অনুযায়ী জামালপুরে নিজ জন্মস্থানে সমাহিত করা হবে। এ প্রসঙ্গে তার বড় ছেলে সাজ্জাদ হোসেন দোদুল জানান, ‘আমার মায়ের ইচ্ছা ছিল বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে দাফন করার। এ নিয়ে খবর বেরিয়েছিল পত্রিকায়। তারপর একটি ছেলে স্বঃপ্রণোদিত হয়ে একটি অডিও রেকর্ড নিয়ে এসে শোনায়। সেই অডিওতে বাবা স্পষ্ট বলেছেন মৃত্যুর পর যেন তাকে জামালপুরে সমাহিত করা হয়। কারণ তিনি মনে করতেন জামালপুরের মানুষই তাকে যুগ যুগ ধরে মনে রাখবে। সেখানকার মানুষ তাকে যতটা ভালোবাসা দেবেন তার থেকে বেশি ভালোবাসা কেউ দিতে পারবে না। বাবা বলেছেন, প্রথম কবিতা লিখে তিনি জামালপুরেই সুনাম অর্জন করেছেন।

বাবার আত্মার সঙ্গে জামালপুর কবরস্থান মিশে আছে। তিনি তার গোলাপী এখন ট্রেনে সিনেমায় কিন্তু জামালপুরের কবরস্থানকে দেখিয়েছেন। অডিও শোনার পর আমরা সিদ্ধান্ত বদলেছি। কারণ আমি শুনেছি ধর্মমতে মৃত্যুর আগে মানুষের বলে যাওয়া শেষ ইচ্ছা পূরণ করা উচিত।’

দোদুল বলেন, ‘আমজাদ হোসেনের মতো বুদ্ধিজীবী জামালপুরে প্রথমবারের মতো সমাহিত হবেন। আগামী কয়েক বছরে তার মতো মানুষ সমাহিত হবে কিনা সন্দেহ! আমরা তারা ছেলেরা আদৌ হয়ত তার মতো পর্যায়ে যেতে পারবো না। জামালপুরের সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো আমজাদ হোসেনকে বাঁচিয়ে রাখবেন সম্মানের সাথে।’

এদিকে জামালপুরে সমাহিত করা হলে শনিবার দাফন করা সম্ভব হবে না। সেজন্য রোববার (২৩ ডিসেম্বর) দাফন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে বলে জানান দোদুল।

উল্লেখ্য, দেশীয় চলচ্চিত্রের কিংবদন্তি নির্মাতা আমজাদ হোসেন কিছুদিন আগে ব্রেইনস্ট্রোক করে রাজধানীর তেজগাঁওয়ের ইমপালস হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে ছিলেন। এরপর মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সহায়তায় তাঁকে ব্যাংককে উন্নত চিকিৎসার জন্য নেয়া হয়। সেখানে কিছুদিন পরে তাঁর মৃত্যু হয়। তাঁর লাশ দেশে আনা নিয়ে জটিলতার সৃষ্টি হয়। আবারও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সহায়তায় অবশেষে তাঁকে দেশা আনা হচ্ছে।

 

 

সিএ/জেডআর/জি


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

Tags

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন