শিক্ষা-ক্যাম্পাসসাহিত্য

রত্না বাড়ৈ’র ‘গল্প বাড়ি নিউইয়র্ক’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন

ফেব্রুয়ারি আমাদের আত্মপরিচয়ের মাস। ভাষার দাবিতে ১৯৫২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারি ঢাকার রাজপথ বুকের রক্তে রঞ্জিত করেছিল সালাম, বরকত, রফিক, জব্বারসহ আরো কত নাম না জানা শহীদ। তাই এ মাস আমাদের আবেগ আর ভালোবাসার। এই ভালোবাসার মাসব্যাপী চলে বইমেলা। পৃথিবীতে বাংলাদেশই একমাত্র দেশ যে দেশের মানুষ ভাষার জন্য জীবন দিয়েছে। তাই একুশ আমাদের অহঙ্কারের দীপশিখা।

১৯৭২ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি সেকালের বর্ধমান হাউজ (আজকের বাংলা একাডেমি ) প্রাঙ্গণের বটতলায় এই বইমেলার সূচনা। চিত্তরঞ্জন সাহা প্রতিষ্ঠিত স্বাধীন বাংলা সাহিত্য পরিষদ (আজকের মুক্তধারা প্রকাশনী) থেকে প্রকাশিত মুক্তিযুদ্ধের সময়ে ভারতে অবস্থানকারী বাংলাদেশী শরণার্থী লেখকদের লেখা মাত্র ৩২টি বই এক টুকরো চটের ওপর বিছিয়ে একুশের বইমেলার যাত্রা শুরু হয়েছিল। আজ সে মেলা অনেক প্রসারিত।

এর পর দেশ-বিদেশে অবস্থানরত বাঙালি ও সরকারের প্রচেষ্টায় ১৯৯৯ সালে মহান একুশে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি পায়। একই বছরের ১৭ নভেম্বর ইউনেস্কো একুশে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা হিসেবে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দেয়। ২০০০ সাল থেকে সারা বিশ্বে একুশে ফেব্রুয়ারি যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হচ্ছে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে। বইমেলা ঘিরে আমাদের প্রত্যাশা অনেক। এই প্রত্যাশা নিয়ে এবারের বইমেলায় প্রকাশিত হয়েছে প্রবাসী লেখক রত্না বাড়ৈ’র নতুন বই ‘গল্প বাড়ি নিউইয়র্ক’।

গত ২৩ ফ্রেব্রুয়ারি শনিবার তেজগাঁও কাথলিক পুরাতন স্কুলে তার নতুন এই বইয়ের মোড়ক উম্মচন করা হয়। এসময় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ফাদার কমল কোড়াইয়া । এই আলোচনা অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন ডঃ আলো ডি’রোজারিও ও কবি হাসান মাহমুদ সহ বাংলাদেশ খ্রিষ্টান লেখক ফোরামের সদস্য, রত্না বাড়ৈ’র পরিবারের সদস্য এবং সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

বক্তরা বলেন, পৃথিবীতে যত রকমের মেলা হতে পারে তার মাঝে সবচেয়ে সুন্দর হচ্ছে বইমেলা। আমার ধারণা পৃথিবীতে যত বইমেলা আছে তার মাঝে সবচেয়ে মধুর বইমেলা হচ্ছে আমাদের ফেব্রুয়ারি বইমেলা। তাই এই বইমেলাতে আপনাদের বাড়তি কিছু দিতে রত্না বাড়ৈ’র নতুন বই ‘গল্প বাড়ি নিউইয়র্ক’। আমরা মনে করছি তার প্রথম প্রকাশ পড়ে আপনাদের ভাল লাগবে। এখানে বাড়তি কিছু পাবেন এই বইতে। আশা করছি আপনারা ভাল বই কিনুন এবং বইমেলার সাথে থাকুন ও রত্না বাড়ৈ’র নতুন বইটি কিনুন। বইটি বইমেলায় প্রতিবেশী প্রকাশনীর ১০৩ নাম্বার স্টলে বইটি পাওয়া যাচ্ছে।

রত্না বাড়ৈ’র জন্ম বরিশাল জেলার গৌরনদী উপজেলায়। বাবা বিমল হাওলাদার, সকালের কাছে ‘বিমল মাস্টার’ নামে পরিচিত। মা পবিত্র হাওলাদার। আট ভাই-বোনের মধ্যে রত্না ৬ষ্ঠ। সেন্ট আলফ্রেড হাইস্কুল এবং গৌরনদী কলেজের পড়াশোনা শেষে ঢাকায় এসে চাকরি-জীবনে প্রবেশ করেন তিনি। স্কুলজীবন থেকেই খেলাধুলা, অভিনয় এবং সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন রত্না। ১৯৯১ সালের ২২ নভেম্বর জেমস টিপু বাড়ৈ’র সঙ্গে আবদ্ধ হন বিবাহ-বন্ধনে। বিয়ের চার বছর পর ছেলে জর্জ গল্প বাড়ৈর জন্ম। এর পরই তারা স্বপরিবারে আমেরিকায় চলে যান এবং বর্তমানে সেখানেই স্বায়ীভাবে বসবাস করছেন। রত্না বাড়ৈ’র বড়ভাই প্রয়াত মাইকেল অতুল হাওলাদারও ছিলেন লেখক। প্রকাশনার সঙ্গেও তিনি যুক্ত ছিলেন। তার আদর্শে এবং অনুপ্রেরণায় বাংলাদেশে থাককালীনই লেখালেখির চর্চা শুরু করেন রত্না। নিউইয়র্কে থেকেও বর্তমানে নিয়মিত লিখেছেন তিনি। তার ‘গল্প বাড়ি নিউইয়র্ক’ বইয়ের অনেক লেখাই নিউইয়র্ক-এর পটভূমিতে রচিত।


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন