বিনোদন

বাংলাদেশের হারিছ এখন মালয়েশিয়ার হ্যারিস্

বাংলাদেশের চিত্রনায়ক নিরব হোসেন অভিনীত ‘বাংলাশিয়া’ ছবিটির মুক্তির সময় নাম পরিবর্তন করে ‘বাংলাশিয়া 2.0’ দেয়া হয়েছে।দীর্ঘ ৫ বছর নিষিদ্ধ থাকার পর মালয়েশিয়ার সেন্সর বোর্ড ছবিটির ৭ টি দৃশ্য কর্তনের সাপেক্ষে সেন্সর সনদ দেয়। ২৮ ফেব্রুয়ারি মালয়েশিয়ার ১১১টি প্রেক্ষাগৃহে ছবিটি মুক্তি পায়। প্রথমদিনেই বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ৪৫ লাখ টাকা আয় করেছে ছবিটি। পাশাপাশি সিনেমা হল সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১১৬টি। প্রডিজি মিডিয়া এন্টারটেইনমেন্টের ব্যানারে নির্মিত এই ছবিটিতে নিরবের বিপরীতে অভিনয় করেছেন সিঙ্গাপুরের মুসলিম অভিনেত্রী আতিকা সোহাইমি। পরিচালনা করেছেন মালয়েশিয়ার নির্মাতা নেময়ুই।

মুঠোফোনে কথা হয় নিরব হোসেনের সাথে তিনি বলেন, অনেকটা সাড়া পাচ্ছে সিনেমাটি। দর্শকরা সিনেমাটি দেখে অনেকটা হ্যাপি। সিনেমা দেখছেন আর ফাঁকে ফাঁকে মারছেন তালি। এসব দেখলেই মনটা ভরে যাচ্ছে।

বাংলাদেশের নায়ক হিসাবে দর্শকরা আপনাকে কতটা গ্রহন করেছে, জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, আমি এই ছবিটির বিষয়ে দর্শকদের অনেক কমেন্টস পাচ্ছি। দর্শকদের যে ভালোবাসা পাচ্ছি এবং প্রত্যেকটি শো-গুলোতে দর্শকদের যে রেস্পন্স দেখে আপ্লুত হচ্ছি। আর এখানকার দর্শকরা মধ্যরাতেও দলবেঁধে সিনেমা দেখছে। প্রত্যেকটা হলে দেখা যাচ্ছে হাউজফুল- এ এক অনন্য অভিজ্ঞতা।

এই ছবিটি কি বাংলাদেশে মুক্তি পাবে কি ? নিরব বলেন, এই বিষয়টা নিয়ে এখনই কিছু বলতে পারছি না। প্রযোজক-পরিচালকের সঙ্গে এটা নিয়ে কথা হচ্ছে। তারা যদি চান বাংলায় ডাবিং করে বাংলাদেশে মুক্তি দিতে, তাহলে সেই অনুযায়ী পদক্ষেপ নেয়া হবে। তবে আমরা এই বিষয়টি নিয়ে চেষ্টা চালিয়ে যাবো।

আপনি যেহেতু ভিন্ন দেশের এবং ভিন্ন ভাষার মানুষ সেহেতু দর্শকরা আপনাকে পেয়ে কতুটুকু আনন্দ বোধ করছে। তিনি বলেন, এখানে দর্শকরা অনেকটা মজার মানুষ। তারা হল থেকে বের হয়ে, দূর থেকে আমাকে হ্যারিস্ হ্যারিস্ বলে ডাকছেন।

তিনি বলেন, সত্যি আমি গর্বিত, কারন আমি একজন বাংলাদেশি। যেখানে বাংলাদেশের শিল্পী হিসেবে মালয়েশিরার একটি ছবিতে গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছি। এবং শোতে ছবি দেখে সবাই প্রশংসা করে বেড় হচ্ছে । অনেক ভালো লাগছে মালয়েশিয়ার সকল দর্শকদের থেকে আমার অভিনয় প্রশংসা ।

আপনার কি দর্শকদের সাথে কথা বলতে সমস্যা হচ্ছে কি না? তিনি বলেন, যেহেতু এই ছবিতে আমাকে মালয় ভাষায় কথা বলতে হয়েছে। আমার সঙ্গে একজন দোভাষী দেওয়া হয়েছিল। তা ছাড়া ডায়ালগগুলো আমি মুখস্থ করেছি। এ জন্যই মালয় ভাষা কিছুটা হলেও বুঝি, তাই কোন সমস্যা হচ্ছে না।

এই সিনেমা নিয়ে আপনার মতামত বলেন, এই বিষয়টি বলতে গেলে আমার জন্য অনেক বড় একটি অর্জন। এর আগে ভারতের কলকাতায় বা হিন্দি সিনেমায় আমাদের দেশের শিল্পীরা কাজ করেছেন। কিন্তু মালেশিয়ান সিনেমায় কেউ কাজ করেছেন বলে আমার জানা নেই। সেই হিসেবে প্রথম বাংলাদেশি নায়ক হিসেবে একটি আন্তর্জাতিক সিনেমায় কাজ করেছি, এটা সত্যিই পড় পাওয়া।

‘বাংলাশিয়া 2.0’ ছবিতে নিরবকে কখনো বাবুর্চি, কখনো মোটর মেকানিক, আবার কখনো কোনো প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী হিসেবে দেখা যাবে। এই সিনেমায় তার নাম থাকে হ্যারিস্। বাংলা ভাষায় বলতে গেলে হারিছ।

প্রসঙ্গত, নিরব অভিনীত ‘টার্গেট’, ‘আব্বাস’, ‘রৌদ্রছায়া’ ও ‘হৃদয়জুড়ে’ ছবির কাজ পুরোপুরি শেষ। এগুলো মুক্তি পাবে যে কোনো সময়। আর বর্তমানে ‘অফিসার রিটার্ন’ ছবির কাজ চলছে।


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন