বিনোদন

কে স্পর্শিয়াকে ‘কাঠবিড়ালি’ বলছেন?

২০১৭ সালের ২১ আগস্টের দিকে নির্মাতা রাফসান আহসানের সঙ্গে বিচ্ছেদ হয় তরুণ মডেল ও অভিনেত্রী অর্চিতা স্পর্শিয়া। অনেক দিন ধরেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে চুপচাপ আছেন তরুণ মডেল ও অভিনেত্রী অর্চিতা স্পর্শিয়া। তবে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কিছু স্বল্পদৈঘ্য ও তিনটি চলচ্চিত্রের শুটিং শেষ করেছেন তিনি। এ বছর সেগুলো আসবে দর্শকের সামনে। এ ছাড়া নাগরিক টিভির একটি নাচের রিয়েলিটি অনুষ্ঠানে দেখা গেছে তাঁকে।

এবার সেই তরুণ অভিনেত্রীকে নাকি কেউ ‘কাঠবিড়ালি’ বলে ডাকছেন। আবার এই নামেই একটি ছবিতেও কাজ করছেন তিনি। ছবিতে তাকে চটপটে ও চঞ্চল এক তরুণীর চরিত্রে দেখা যাবে। চলতি বছরেই মুক্তি পাবে ছবিটি।

তবে কে সেই বিশেষ মানুষটি যে স্পর্শিয়াকে ‘কাঠবিড়ালি’বলছেন? এবিষয়টি সংবাদমাধ্যম জানতে চাইলে তিনি বলেন, কে কাঠবিড়ালী নামে ডাকে সেটা বলা যাবে না এখন। এটা একটা রহস্য।

তাহলে কি এই রহস্য ? তবে কি আবার স্পর্শিয়ার জীবনে নতুন কারও আবির্ভাব ঘটেছে? কৌতূহল অনেকের। প্রথম দাম্পত্য জীবনের ইতি ঘটেছে, তাও যে প্রায় দেড় বছর পেরিয়ে গেছে।

২০১৫ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর বিজ্ঞাপননির্মাতা রাফসান আহসানের সঙ্গে পারিবারিকভাবে বাগদান সম্পন্ন হয় স্পর্শিয়ার। তার দুই দিন বাদে ১ অক্টোবর বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন তারা। একটি অনলাইন শপের ভিডিওচিত্র নির্মাণের সময় সখ্য গড়ে উঠেছিল রাফসান ও স্পর্শিয়ার। ধীরে ধীরে তা রূপ নেয় বন্ধুত্বে। এরপর প্রেম ও পরিণয়।

কিন্তু সেই শুভ পরিণয় দুই বছরও টেকেনি। ২০১৭ সালের ২১ আগস্ট রাজধানীর মোহাম্মদপুরের একটি কাজী অফিসে দুজনের জীবনের পথ আনুষ্ঠানিকভাবে দুই দিকে বাঁক নেয়। অবশ্য তার মাসখানেক আগে থেকে আলাদা থাকতে শুরু করেছিলেন এই জুটি।

ছাড়াছাড়ি প্রসঙ্গে তখন স্পর্শিয়ার সাবেক স্বামী রাফসান অভিযোগ করেছিলেন, তাদের সংসারে তৃতীয় ব্যক্তি ঢুকে পড়েছিলেন। সেই তৃতীয় ব্যক্তিই এই ‘কাঠবিড়ালি’র অচেনা মানুষটি কি না এমন গুঞ্জন এখন ঢালিউড পাড়ায়।

অর্চিতা স্পর্শিয়া মডেলিং ও টিভি বিজ্ঞাপন পাশাপাশি নাটকে অভিনয় করে সুনাম কুড়িয়েছিলেন। ‘ইম্পসিবল ফাইভ’ নাটকে অভিনয় করে বেশ জনপ্রিয়তা পান তিনি। এ ছাড়া বিটিভিতে বিবিসি বাংলার সিরিজ ‘উজান গাঙ্গের নাইয়া’তে অভিনয় তাঁর কর্মজীবনে ভিন্ন মাত্রা যোগ করে।

স্পর্শিয়া তাঁর অভিনয় জীবন শুরু করেন ‘প্যারাসুট’ তেলের বিজ্ঞাপনের অভিনয় দিয়ে। ‘বন্ধু তিন দিন’ শিরোনামের সেই বিজ্ঞাপনটি সে সময় জনপ্রিয় ছিল।

 


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন