বিনোদন

‘মিশন এক্সট্রিম’ নায়ক-না‌য়িকা কিংবা ভি‌লেন কেন্দ্রিক ছবি না’

আজ সোমবার রাজধানীর এক‌টি রে‌স্তোরায় অনু‌ষ্ঠিত হয়েছে ‘মিশন এক্সট্রিম’ ছবির সংবাদ স‌ম্মেল‌ন। এসময় উপস্থিত ছিলেন অভিনেতা আরিফিন শুভ, তাসকিন রহমান, অভিনেত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস ঐশী, সাদিয়া নাবিলা, পরিচালক সানী সানোয়ার ও ফয়সাল আহমেদসহ ছবির সকল শিল্পী ও কলাকুশলী।

এ সময় ছবির নায়ক আরিফিন শুভ বলেন, ‘মিশন এক্সট্রিম’ নায়ক-না‌য়িকা কিংবা ভি‌লেন কেন্দ্রিক ছবি না। সাধারণত ছবিগুলোতে দর্শক দেখে থাকেন, নায়ক-নায়িকা কিংবা ভিলেনকে নিয়েই ছবি গল্প এগিয়ে থাকে। কিন্তু এই ছবির প্রতিটি চরিত্রই বেশ গুরুত্বপূর্ণ। সবাইকে ঘিরে তৈরি হয়েছে ছবির গল্প।

ঐশী বলেন, মিশন এক্সট্রিমের গল্পে আত্মনির্ভরশীল এক কর্মজীবী নারীর চরিত্রে দেখা যাবে আমাকে। আমি চেষ্টা করবো এই চরিত্রটা ফুটিয়ে তুলতে। আর কাজ করতে গেলে ভুল হবেই। আর এটা আমার প্রথম সিনেমা। আমি চেষ্টা করেছি, ভুল-ত্রুটি এড়িয়ে চলতে এবং টিমের সবাই মিলে বেশ সহযোগিতাও করেছে আমাকে। রাত-দিন অক্লান্ত পরিশ্রম করে, আমরা চেষ্টা করছি দর্শকদের সুন্দর একটি ছবি উপহার দেওয়ার। আমার বিশ্বাস, সব দর্শকই ছবিটি আনন্দের সঙ্গে গ্রহণ করবেন।

নির্মাতা সানী সানোয়ার বলেন, ক‌ঠোর গোপনীয়তার মধ্য‌দি‌য়ে আমরা এর শুটিং করেছি বাংলাদেশে। এখানে আরও দু’তিন দিনের শুটিং বাকি আছে। রোজার মধ্যে সেই অংশের কাজ করব। এবার আমরা যাবো, দেশের বাইরে। অনেকে ছবির গল্প কিংবা স্থিরচিত্র চেয়েছেন। কিন্তু আমরা চাই না, এ বিষয়গুলো এখন প্রকাশ হোক। আমরা পুরো বিষয়টি চমক হিসেবে রেখেছি আর মুক্তির আগ পর্যন্ত তা রাখতে চাই। দর্শকদের বলবো, ছবিটি দেখে আপনারা নিরাশ হবে না, এটা শতভাগ নিশ্চিত।’

‘মিশন এক্সট্রিম’ টিমের সঙ্গে সকলকে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার জন্যই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছে বলে জানান ছবির পরিচালক সানী সানোয়ার ও ফয়সাল আহমেদ।

‘মিশন এক্সট্রিম’র কাহিনী, চিত্রনাট্য এবং সংলাপ লিখেছেন সানী সানোয়ার। দর্শক চাহিদার উপর ভিত্তি করে ছবির গল্প বলার ধরণ, অ্যাকশন দৃশ্য চিত্রায়ন এবং বিভিন্ন দৃশ্যের জন্য অত্যাধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার করা হয়েছে। গত ২০ মার্চ থেকে ২০ এপ্রিল পর্যন্ত টানা এক মাস ছবির শুটিং হয়েছে বলে জানান তারা।

সংবাদ সম্মেলনে আরও জানানো হয়, ‘মিশন এক্সট্রিম’ ছবিটি পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট তথা ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের ‘সিটিটিসি’র কিছু শ্বাসরুদ্ধকর অভিযান থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে নির্মাণ করা হচ্ছে। ছবির কাহিনীকার সানী সানোয়ার (পুলিশ সুপার, বাংলাদেশ পুলিশ) পুলিশের স্পেশাল পুলিশ ফোর্সের একজন অভিজ্ঞ সদস্য। তিনি তার পেশাগত (বাস্তব) জীবনের কিছু অভিজ্ঞতা থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে এর গল্প লিখেছেন।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত বাংলাদেশের প্রথম পুলিশ অ্যাকশন থ্রিলার ছবি ‘ঢাকা অ্যাটাক’র কাহিনীকারও ছিলেন তিনি। ‘মিশন এক্সট্রিম’ হতে যাচ্ছে ‘ঢাকা অ্যাটাক’ টিমের দ্বিতীয় ছবি।


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন