সারাবিশ্ব

প্রেমে ব্যর্থ হয়ে মন্দিরে ফেসবুক লাইভ করে আত্মহত্যা

প্রেম-ভালবাসা-ব্যর্থতা সবার জীবনেই হয়। তবে তাই বলে আত্মহত্যার মতো ঘৃণিত কাজ কেউই পছন্দ করে না। প্রেমিকার সঙ্গে বিয়ে হয়নি। অন্যের সঙ্গে প্রেমিকা চলে যাওয়াও ২২ বছর বয়সী এক তরুণ ফেসবুকে লাইভে এসে আত্মহত্যা করেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের উত্তর প্রদেশের আগ্রার রায়ভা গ্রামের।

সবচেয়ে মর্মান্তিক হচ্ছে- শ্যামের বেশ কয়েকজন ফেসবুক বন্ধু লাইভে তার আত্মহত্যার ঘটনা দেখেছেন। তবে আত্মহত্যার সিদ্ধান্তের বিষয়ে আগে থেকেই বন্ধু-বান্ধব ও পরিবারের সদস্যদের কাছে ক্ষমা চেয়ে নেন শ্যাম।

পুলিশের বরাতে সংবাদমাধ্যম জানায়, সম্প্রতি অন্য একজনের সঙ্গে শ্যামের প্রেমিকার বিয়ে ঠিক হয়। এ ঘটনা মেনে নিতে না পেরে আত্মহত্যার পথ বেছে নেন তিনি। আত্মহত্যার ঘটনার আগে চার পৃষ্ঠার একটি সুইসাইড নোটও লিখে যান শ্যাম।

পুলিশ জানতে পারে, শ্যাম যে আত্মহননের কথা ভাবছেন, তা নিজের বন্ধুদেরও জানিয়েছিলেন। কিন্তু কেউই তার কথার সেভাবে আমল দেননি। তার সমস্যাকে গুরুত্ব দিলে হয়তো বাঁচতে পারত একটা তরুণ প্রাণ। কিন্তু হল অন্যরকমই। মিনিট চারেকের লাইভে শ্যাম পুলিশকে জানান, তার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়। কাউকে যেন গ্রেফতার করা না হয়। পাশাপাশি পরিবারের কাছে তিনি অনুরোধ করেন, তার মৃতদেহের ছবি যেন সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করা হয়। ফেসবুক লাইভের পাশাপাশি একটি চারপাতার সুইসাইড নোটও উদ্ধার করেছে পুলিশ।

যেখানে নিজের কষ্ট ব্যক্ত করে শ্যাম লিখেছেন, আমি ওকে (প্রেমিকা) খুব মিস করি। ওকে ছাড়া বাঁচতে পারছি না। ওর অন্য কাউকে বিয়ে করাটা মেনে নেওয়া কঠিন। মানসিক চাপে ভুগছিলাম। নিজের চাকরিটাও খুইয়েছি। চিঠিতে অঙ্গদানের ইচ্ছাও প্রকাশ করে গিয়েছেন তিনি। ঘটনার তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে, গুরগাঁওয়ের একটি কারখানায় কাজ করতেন শ্যাম। তবে সম্প্রতি চাকরি হারিয়েছিলেন। তার লাইভের ভিডিওটি মুছে ফেলে ফেসবুক অ্যাকাউন্টটি ডিঅ্যাকটিভেট করে দেওয়া হয়েছে।


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন