রাজনীতি

কাউন্সিলর হুমায়ুন রশিদ জনি জনকল্যাণে নিবেদিত প্রান

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ রাজধানীর উত্তর সিটি কর্পোরেশন এর ১৪নং ওয়ার্ডে লেগেছে নাগরিকদের প্রত্যাশিত উন্নয়নের ছোঁয়া। স্থানীয় ওয়ার্ডবাসী উন্নয়ন আর নাগরিক সেবায় সন্তুষ্ট হয়েছেন কাউন্সিলর আলহাজ্ব হুমায়ুন রশিদ জনি’র উপর। তার ঐকান্তিকতা প্রচেষ্টা আর আন্তরিকতাপূর্ণ কর্মকাণ্ডে ১৪নং ওয়ার্ড একটি আদর্শ ও মডেল ওয়ার্ডে পরিণত হয়েছে।

সরজমিন পরিদর্শনে দেখা যায়, শেওড়াপাড়া, কাজিপাড়া, সেনপাড়া এলাকার ভাঙা-চোরা, ছোট রাস্তাগুলোকে বড় করে পাকা করায় জনদূর্ভোগ কমেছে শতভাগ। মাদক, সন্ত্রাস ও অসামাজিক কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান গড়ে তুলেছেন বলে অনেক নাগরিক মনে করেন, কাউন্সিলর জনি’ই ওয়ার্ডের উন্নয়নের জন্য ফিট।

তার উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে, পশ্চিম শেওড়াপাড়া ওলিমিয়ার টেক পাম্প থেকে বর্ডার বাজার ওয়াসা রোড পর্যন্ত সরু রাস্তাটি আরো ১০ফুট বাড়িয়ে প্রশস্ত করে পাকা করেছেন।

পশ্চিম শেওড়াপাড়া শামীম স্বরনী থেকে কড়ুইতলা পর্যন্ত ছোট রাস্তাকে আরও ১০/১২ ফুট বাড়িয়ে পাকা করেছেন।

পশ্চিম কাজীপাড়া সাত তারা মসজিদ রোডটিকে ১০ফুট চওড়া থেকে প্রশস্ত করে পাকা করেছেন।

পশ্চিম সেনপাড়া সমাজকল্যাণ মসজিদ রোডকে ২০ফুট প্রশস্ত করে পাকাকরন।

পূর্ব সেনপাড়ার শাহ আলী মার্কেট এর পিছনের রাস্তাটিকে মিনারবা পেট্রোল পাম্প পর্যন্ত ১০ফুটের রাস্তাকে ৩০ ফুট প্রশস্ত করে ঢালাই করে পাকা করেছেন।

পূর্ব কাজীপাড়ায় আল-হেলাল হাসপাতালের উত্তর পাশ দিয়ে আমতলা বাজার পর্যন্ত রাস্তাটি ১০ফুট থেকে ২০ফুটে রুপান্তর করে পাকা করেছেন। পূর্ব কাজীপাড়ার পিজা কিং এর গলির রাস্তাটিকে ১০ফুট থেকে ২০ফুট প্রশস্ত করে ঢালাই করেছেন।

পূর্ব কাজীপাড়ার আল-আকসা মসজিদ রাস্তাটিকে ৬ফুট থেকে ২০/২৫ ফুট প্রশস্ত করে পাকা করেছেন।

পূর্ব কাজীপাড়াস্থ বিন্দু বৃত্ত গলির রাস্তাটিকে ৫/৬ ফুট থেকে ১২ফুট প্রশস্ত করে পাকা করেছেন।

পশ্চিম শেওড়াপাড়াস্থ মান্নান স্বরনী থেকে খালপাড় পর্যন্ত রাস্তাটিকে ১০/১২ ফুট থেকে ১৮/২০ফুট করে পাকা করেছেন।

অত্যন্ত জনগুরুত্বপূর্ণ রোড শেওড়াপাড়া বাসস্ট্যান্ড থেকে শুরু হয়ে পীরেরবাগ হয়ে বাংলা কলেজ পর্যন্ত রাস্তাটিকে ১০/১২ ফুট থেকে ২৫/৩০ ফুট প্রশস্ত করে পাকা করেছেন।

১৪ নং ওয়ার্ডের সব রাস্তাগুলোর ৮০শতাংশই নতুন পাইপ বসিয়ে পাকা করেছেন।

বাকী ২০শতাংশ খুব দ্রততার সাথেই শেষ করবেন জানান কাউন্সিলর আলহাজ্ব হুমায়ুন রশিদ জনি।

উক্ত এলাকায় একসময় খুবই পানি সংকট ছিল, কাউন্সিলর জনির ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় পানির সমস্যা এখন আর নেই।

তিনি নতুন ৮টি পানির পাম্প বসিয়েছেন এবং পুরাতন ৬টি পানির পাম্প সংস্কার করায় পানির সমস্যা মুক্ত ১৪ নং ওয়ার্ডবাসী।

এছাড়া তার দায়িত্বপ্রাপ্ত এলাকা সংলগ্ন সকল পানির লাইন পরিস্কার, পরিবর্তন করার ফলে প্রায় আড়াই লক্ষ মানুষ পর্যাপ্ত পানির সুবিধা পাচ্ছে।

কাউন্সিলর জনি এলাকার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ও পুলিশ অফিসারদের সমন্বয়ে মাদক ও চাঁদাবাজি বিরোধী সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলায় এই এলাকায় এ ধরনের অপরাধ এখন আর নেই।

কাউন্সিলর এর ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ফুটপাত দখলমুক্ত করে পথচারীদের নিরবচ্ছিন্ন ভাবে চলাচলের ব্যবস্থা করেছেন।

কাউন্সিলর আলহাজ্ব হুমায়ুন রশিদ জনি’র ব্যক্তিগত উদ্যোগ ও অর্থায়নে শেওড়াপাড়ায় জায়গা ক্রয় করে নূরুল কোরআন নামে ১টি মাদ্রাসা নির্মাণ করেছেন।

বিসিএফডি স্কুলের মাধ্যামে প্রতি বছর ৫০০জন ছাত্র-ছাত্রীকে বিনামূল্যে শিক্ষার সুযোগে করে দিয়েছেন। কাউন্সিলর জনি বিসিএফডি স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান।

এলাকার দরিদ্র মানুষের ত্রানকর্তা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করেছেন কাউন্সিলর জনি। ওয়ার্ডের সাধারন নাগরিক মনে করেন জনিই যেন পূনরায় তাদের ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হিসেবে নির্বাচিত হোন।


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন