বিনোদন

অসহায় শীতার্ত ও পথ শিশুদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণে-এভ্রিল

গত কাল ২ ডিসেম্বর মধ্যরাতে  অসহায় শীতার্ত ও পথ শিশুদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করছেন জান্নাতুল নাঈম এভ্রিল।ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা থেকে শুরু করে কমলাপুর রেলস্টেশন পর্যন্ত রাস্তার পাশে শীতে কাতর প্রায় ৫০০ মানুষের মধ্যে এভ্রিল শীতবস্ত্র দিয়েছেন।

আজ ফোন কথা বলার সময় , জান্নাতুল নাঈম এভ্রিল বলেন, একজন মানুষ হয়ে আরো একজন অসহায় কর্মঅক্ষম মানুষের পাশে দাঁড়ানো আমাদের নৈতিক দায়িত্ব। এই তীব্র শীতের আমেজটা ধনীদের কাছে উপভোগ্যই বটে শীতের প্রকোপ থেকে রক্ষা পেতে মোটা কম্বল গায়ে চাপিয়ে সুখ নিদ্রায় তারা রাত্রি যাপন করে। সকাল হলে পোশাক জড়িয়ে সোফায় বসে গরম চায়ের কাপে চুমুক দেয় আর সংবাদপত্রে চোখ বুলায় কতই না আরামদায়ক জীবন তাদের।রাতেরবেলা অনেক অসহায় মানুষ দেখা যায় যারা শীতে কাতর হয়ে রাস্তায় শুয়ে থাকেন, কী নিদারুণ কষ্ট তাদের শীত নিবারণের জন্য সামান্য শীতবস্ত্র পায় না তারা প্রচণ্ড শীতের রাতে ঠক ঠক করে কাঁপতে থাকে অসহায় মানুষগুলো তাদের কাছে শীত আসে কষ্ট বাড়িয়ে দিতে।যে মানুষগুলো আহার জোটাতে পারে না গরম পোশাক তাদের কাছে স্বপ্ন বৈকি। আজ রাস্তার পাশে কত শিশু আছে তারা জানে না তাদের পরিচয় জন্মের পর বাবা-মায়ের স্নেহ ভালোবাসা থেকে তারা বঞ্চিত। হাড় কাঁপানো শীতের রাতে মায়ের বুকের উষ্ণতা পেলে শিশুদের কিছুটা হলেও কষ্ট লাঘব হয়। অথচ এ মধুর স্পর্শ তারা কখনো অনুভব করেনি। অসহায় সম্বলহীন, আশ্রয়হীন এমন মানুষের সংখ্যা নিতান্ত কম নয়।সেই সব মানবেতর জীবনযাপন কারীদের শীত সামগ্রী তুলে দিয়েছি।

তিনি বলেন, প্রথমে রাজধানী থেকেই অসহায় মানুষদের শীত সামগ্রী বিতরণ শুরু করেছি। আগামীতে নারায়ণগঞ্জ, ময়মনসিংহসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় গিয়ে শীতবস্ত্র বিতরণ করবো।

তিনি আরও বলেন,শীত মৌসুমে দরিদ্রদের কষ্টের সীমা নেই,থাকে না তাদের প্রয়োজনীয় শীতবস্ত্র সমাজের ধনী শ্রেণী যদি তাদের পাশে দাঁড়াত, বাড়িয়ে দিত সহমর্মিতার হাত, তবে শীতে কাতর মানুষগুলো হিমের পরশ থেকে নিজেদেরকে রক্ষা করতে পারত।

জান্নাতুল নাঈম এভ্রিল আরো বলেন কে ভি রাইডার্স ও এ সি আই মটরস আমাকে সাহায্য না করলে আমার একার পক্ষে সম্ভব হতো না অসহায় শীতার্ত ও পথ শিশুদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করা।কৃতজ্ঞতা জাপন করছি, কে ভি রাইডার্স ও এ সিআই মটস প্রতি আমি।

বন্দরনগরী চট্টগ্রামের মেয়ে জান্নাতুল নাঈম এভ্রিল। ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ হয়ে ‘মিস ওয়ার্ল্ড’ আসরের বিশ্বমঞ্চে লড়াইয়ের কথা থাকলেও কিন্তু ভাগ্য প্রতিকূলে থাকায় শেষ পর্যন্ত মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশের মুকুটও হারাতে হয়েছে। তবে এভ্রিল থেমে থাকেননি, কাজ করে যাচ্ছেন শোবিজে। পাশাপাশি সারাদেশে বাল্যবিধবা রোধে তিনি গঠন করছেন এভ্রিল ফাউন্ডেশন। সম্প্রতি একটি নাটকে কাজ করেছেন।।আহসান হাবিব সকালের রচনায় জুনায়েদ বিন জিয়ার পরিচালনায় ‘এমনো তো প্রেম হয়’ শীর্ষক একটি খণ্ড নাটকে। শিগগির বড়পর্দায় কাজ করার আভাসও দিয়েছেন।

 


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন