বিনোদন

আজ কণ্ঠশিল্পী কনকচাঁপার জন্মদিন

‘কি জাদু করেছো বলোনা’, ‘একবিন্দু ভালোবাসা দাও’, ‘অনেক সাধনার পরে আমি পেলাম তোমার মন’, ‘এই বুকে বইছে যমুনা’, ‘নীলাঞ্জনা নামে ডেকনা’সহ অসংখ্য জনপ্রিয় গানের নন্দিত কণ্ঠশিল্পী কনকচাঁপা। দেশের সঙ্গীতাঙ্গনের প্রথিতযশা এ কণ্ঠশিল্পীর জন্মদিন আজ।  ১৯৬৯ সালের ১১ সেপ্টেম্বর রুমানা মোর্শেদ কনকচাঁপা জন্ম গ্রহণ করেন।

জীবনের ৪৯ বসন্ত পেরিয়ে এসে কনকচাঁপা আজ পা রাখলেন ৫০ বছরে। চারবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত এ কণ্ঠশিল্পী চলচ্চিত্রের গানে কণ্ঠ দিয়েই শ্রোতাদের মনে ঠাঁই করে নিয়েছেন। চলচ্চিত্র, আধুনিক গান, নজরুল সঙ্গীত, লোকগীতিসহ প্রায় সবধরনের গানে কনকচাঁপা সমান পারদর্শী। তার আজ দিনটি ঘিরে কোনো আয়োজন নেই। ছিলও না কখনও। অন্যান্য স্বাভাবিক দিনের মতোই জন্মদিন কাটান তিনি। দিবসের পুরোটা সময়ই পরিবারের সঙ্গেই থাকেন।

কনকচাঁপা বলেন, জন্মদিনে আমি নিজে কখনই কোনো বিশেষ আয়োজন করি না। মাঝে মাঝে আমার ‘ইসকুল’-এর শিক্ষার্থীরা, ভক্তরা বিশেষ আয়োজন করেও ফেলে। তাতে অংশ নিতে হয়। কিন্তু এবার আর তেমন কিছু করাই হচ্ছে না। কিছুটা পারিবারিক ব্যস্ততা আছে। তাই কোনো আয়োজনেই এবার সাড়া দিতে পারছি না।

তবে দিনটি উপলক্ষে সবার কাছে দোয়া চেয়ে এ শিল্পী বলেন, আল্লাহর রহমতে সুন্দর একটি জীবন হয়েছে আমার। সুস্থ সুন্দরভাবে বেঁচে আছি, তাই তাঁর কাছে সবসময়ই আমি শুকরিয়া আদায় করি। আগামী দিনগুলোও সবাইকে সঙ্গে নিয়ে যেন এভাবে বেঁচে থাকতে পারি এটাই কাম্য।’ আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর যশোরে একটি স্টেজ শোতে সঙ্গীত পরিবেশন করবেন বলে জানান কনকচাঁপা।

কনকচাঁপার বাবা আজিজুল হক মোর্শেদ। পাঁচ ভাই বোনের মধ্যে তৃতীয় কনক চাঁপা। অসংখ্য জনপ্রিয় গান উপহার দিয়ে তিনি বাংলা গানের ভাণ্ডারকে সমৃদ্ধ করেছেন। নিজেকে সব সময় একজন কণ্ঠশ্রমিক হিসেবে পরিচয় দিতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন সঙ্গীতের এই বিরল প্রতিভা।

কনকচাঁপা ৩৩ বছর ধরে সঙ্গীতাঙ্গনে কাজ করে যাচ্ছেন। এ পর্যন্ত চলচ্চিত্রের তিন হাজারেরও বেশি গানে কণ্ঠ দিয়েছেন কনক চাঁপা। প্রকাশিত হয়েছে ৩৫টি একক গানের অ্যালবাম। গানের পাশাপাশি লেখক হিসেবেও কনকচাঁপার সুখ্যাতি রয়েছে।

২০১০ সালের অমর একুশে বইমেলায় ‘স্থবির যাযাবর’, ২০১২ সালের অমর একুশে বইমেলায় ‘মুখোমুখি যোদ্ধা’ ও ২০১৬ সালের অমর একুশে বইমেলায় ‘মেঘের ডানায় চড়ে’ নামে তিনটি বই প্রকাশিত হয়েছে কনক চাঁপার। তিনি একটি অনলাইন পত্রিকায় ধারাবাহিকভাবে ‘কাটাঘুরি’ নামে ধারাবাহিক একটি লেখা লিখে যাচ্ছেন। আগামী একুশে বইমেলায় সেটিকে বই আকারে প্রকাশ করার ইচ্ছে রয়েছে বলে জানিয়েছেন।

কনকচাঁপা বিখ্যাত কন্ঠশিল্পী বশীর আহমেদের ছাত্রী। দীর্ঘদিন তাঁর কাছে উচ্চাঙ্গ, নজরুল সঙ্গীতসহ অন্যান্য ভারতীয় সঙ্গীতের তালিম নিয়েছেন।

কনকচাঁপার জনপ্রিয় গানের মধ্যে- অনেক সাধনার পরে আমি পেলাম তোমার মন, তোমাকে চাই শুধু তোমাকে চাই, ভাল আছি ভাল থেকো, যে প্রেম স্বর্গ থেকে এসে জীবনে অমর হয়ে রয় (খালিদ হাসান মিলুর সাথে), আমার নাকেরই ফুল বলে রে তুমি যে আমার, তোমায় দেখলে মনে হয়, আকাশ ছুঁয়েছে মাটিকে, অনন্ত প্রেম তুমি দাও আমাকে, তুমি আমার এমনই একজন উল্লেখযোগ্য।

গানের জন্য রুমানা মোর্শেদ কনক চাঁপা জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ছাড়াও বাচসাস চলচ্চিত্র পুরস্কার, দর্শক ফোরাম পুরস্কার, প্রযোজক সমিতি পুরস্কারসহ অসংখ্য পুরস্কার-সম্মাননা পেয়েছেন।

সুরের রাজকন্যা কনকচাঁপা তার অনন্য কণ্ঠবীণায় আরো দীর্ঘ সময় আমাদের সঙ্গীত পিপাসু মনকে রাঙ্গিয়ে যাবেন। গানে গানে আরো আলোকিত করবেন আমাদের সঙ্গীত ভুবন। কীর্তিমান এই সঙ্গীতশিল্পীর জন্মদিনে থাকলো দেশ রিপোর্টপরিবারের নিরন্তর শুভেচ্ছা।


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

Tags

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন