লাইফষ্টাইল

কিভাবে দূর করবেন জুতার গন্ধ!

অনেকের দেখা যায় শরীরের অন্যান্য অংশে ঘাম না হলেও, পা সারাদিনই ঘামে। ফলে জুতা পরার উপায় নেই! মোজায় ভেজা ভেজা বা চটচটে ভাব। কিন্তু জুতা খোলার উপায় নেই। জুতো খুললেই আশপাশের সবাই পড়বে অস্বস্তিতে। কারণ খুলার পরই বের হবে প্রচণ্ড দুর্গন্ধ!

অতিরিক্ত পা ঘামা বিরক্তিকর একটি সমস্যা, বিশেষ করে অনেকেরই শীতকালে খুব পা ঘামে। আর ঘেমে যাওয়া পায়ে খুব দ্রুত ব্যাকটেরিয়া জন্মাতে শুরু করে, যার ফলে পায়ে বিশ্রী দুর্গন্ধের সৃষ্টি হয়। অনেকে দুর্গন্ধ এড়াতে টেলকম পাউডার ব্যবহার করে থাকেন। এ ক্ষেত্রে অনেক সময় মোজায় পারফিউম বা পাউডার মেখেও লাভ হয় না।

তাহলে উপায়! উপায় আছে। জেনে নিন কিভাবে ঘরোয়া উপায়েই মুক্তি পাবেন এই অস্বস্তিকর পরিস্থিতি থেকে।

) বেকিং সোডার ব্যবহার : বেকিং সোডার অ্যাসিডিক উপাদান পা পরিষ্কার রাখতে সহায়তা করে এবং পায়ে ব্যাকটেরিয়া জন্মাতে বাধা সৃষ্টি করে। এতে করে পা অতিরিক্ত ঘেমে যাওয়া এবং পায়ে বিশ্রী দুর্গন্ধ হওয়ার সমস্যা আর থাকে না। পা খুব ভাল করে পরিষ্কার করে, হাতে সামান্য বেকিং সোডা নিয়ে পায়ে ভাল করে ঘষে নিন। এর ফলে পায়ে অতিরিক্ত ঘাম হওয়া বন্ধ হবে। চাইলে বন্ধ জুতোর ভেতরেও ছিটিয়ে নিতে পারেন খানিকটা বেকিং সোডা, এতেও অনেক উপকার পাবেন।

) লবন পানির ব্যবহার : লবন পানি পায়ে ফাঙ্গাসের আক্রমণ ঠেকাতে সাহায্য করে। নিয়মিত লবন পানির ব্যবহারে পা অতিরিক্ত ঘেমে যাওয়ার সমস্যা একেবারেই কমে আসে। প্রতিদিন বাড়িতে ফিরে সামান্য উষ্ণ গরম পানিতে লবন মিশিয়ে পা ডুবিয়ে রাখুন অন্তত ১৫ থেকে ২০ মিনিট। পা ঘামার সমস্যা দূর হবে, সেই সঙ্গে আপনার পা ছত্রাকের আক্রমণ থেকেও রেহাই পাবে।

পায়ে অতিরিক্ত ঘাম আর দুর্গন্ধ থেকে বাঁচতে মেনে চলুন আরও কয়েকটি নিয়ম-

সুতির মোজা ব্যবহার করুন।

যাদের এমন সমস্যা হয়, তাদের ঘন ঘন চা বা কফি না খাওয়াই ভাল।

মশলাদার (স্পাইসি) খাবারদাবার এড়িয়ে চলুন।

সপ্তাহে অন্তত একবার জুতোর ভিতরে সুগন্ধি পাউডার দিয়ে, ভাল করে কাপড় দিয়ে মুছে নিন।

মাঝে মধ্যে জুতোগুলোকে রোদে দিন।

একই মোজা দু’দিনে ব্যবহার করবেন না।

নিয়মিত পা পরিষ্কার রাখুন। বাইরে থেকে ঘরে ফিরে গরম পানিতে একটু লবন ফেলে ভাল করে পা ধুয়ে নিন।

ভাল করে পা মুছে, ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিন।

ডিউড্রেন্ট সাবান অথবা গরম পানি দিয়ে নিয়মিত পা পরিষ্কার রাখুন।

প্রতিদিন একজোড়া মোজাই ব্যবহার করা ভালো।

রোদ ও আলোযুক্ত স্থানে জুতা রাখুন। অন্ধকার পরিবেশে জুতায় ব্যাকটেরিয়া জন্মাতে পারে।

 

 

 

এসবি


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন