সারাদেশ

কুষ্টিয়ায় নারী জোটের নেত্রী শান্তা উধাও!

কুষ্টিয়া জেলার ভেড়ামারা উপজেলার নারী জোটের নেত্রী সিনথিয়া হক শান্তার উধাও হওয়ার খবরে জেলাজুড়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে।

বুধবার প্রাক্তন স্বামী মনোয়ার হোসেন মিঠুনের হাত ধরে অজানার উদ্দেশ্যে পাড়ি দিয়েছেন বলে শান্তার এক নিকটাত্মীয় দাবি করেছেন।

এরপর থেকে মিঠুন-শান্তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি বন্ধ রয়েছে।

তবে শান্তার বাবা সামসুল হক তার মেয়েকে খুঁজে পাচ্ছেন না বলে থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছেন। যদিও পুলিশ এই ডায়েরির কথা স্বীকার করেনি।

শান্তা পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের জাসদের সহযোগী নারী সংগঠন জাতীয় নারী জোটের সাধারণ সম্পাদক।

শান্তা পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের নারী জোটের সাধারণ সম্পাদক হওয়ায় পর ওই পৌরসভার জাসদ ছাত্রলীগের আহ্বায়ক প্রত্যাশা শহীদের সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্ক গড়ে উঠে।

এক পর্যায়ে তাদের অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ভিডিও নিজের মোবাইলফোনে ধারণ করেন শান্তা। এরপর সেই ভিডিও ও ছবি নিজের অজানতেই দলীয় নেতাকর্মীদের মাঝে ছড়িয়ে পড়ে।

এ ঘটনার পর মিঠুন ডিভোর্স দেয় শান্তাকে।

গত দেড় মাস আগে কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার একটি গ্রামে আবারো বিয়ে করেন মিঠুন।

কিন্তু বিয়ের পর শান্তা ও মিঠুনের সেই পুরনো সম্পর্ক ফের জোড়া লাগে। তাই আবারো দুইজন পালিয়েছে।

শান্তার বাবা সামসুল হক শান্তা উধাও হওয়ার ঘটনার কথা স্বীকার করে বলেন, কোথায় গেছে আমি জানি না। মিঠুনের নামে মামলা চলায় তার পরিবারের লোকজন শান্তাকে যেতে বলেছে। আমি সেফটির কারণে থানায় সাধারণ ডায়রি করেছি।

এ ব্যাপারে ভেড়ামারা পৌরসভার জাসদ ছাত্রলীগের আহ্বায়ক প্রত্যাশা শহীদের সাথে শান্তার পরকীয়া সম্পর্কের সত্যতা জানতে তার মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

এদিকে ভেড়ামারা থানার (ওসি) খন্দকার শামীম জানান, এমন ঘটনায় কেউ থানায় সাধারণ ডায়রি করেননি। কেউও যদি সাধারণ ডায়রির করার কথা বলে থাকে এটা তার মিথ্যা কথা।

জেলা জাসদের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আলীম স্বপন বলেন, এমন ঘটনা আমি কাল শুনেছি।

 

 

সিএসবি


ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। DeshReport.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো সংবাদ...

মন্তব্য করুন